1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
কুমিল্লা জেলার ট্রাফিক পুলিশ টি এস আই আশীষ কুমারের অসামান্য সেবার জন্য পুরষ্কার প্রাপ্তি - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ১০:৫৫ পূর্বাহ্ন
Title :
“কুমিল্লার হোমনায় ব্যবসায়ী হত্যা : আদালতের ঐতিহাসিক রায়ে ৭ জনের মৃত্যুদ- ও ৭ জনের যাবজ্জীবন” চৌদ্দগ্রামে বিদেশ প্রত্যাগত অভিবাসীদের পুনঃএকত্রীকরণে সেমিনার চৌদ্দগ্রামে দুর্নীতি বিরোধী বিতর্ক ও রচনা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ঈদের আগে জাল টাকার ছড়াছড়ি : ক্রেতা-বিক্রেতারা আতঙ্কে চৌদ্দগ্রামে বজ্রপাতে মাটিকাটার শ্রমিক নিহত হারানো পরিবারের সন্ধানে মোহাম্মদ ইয়াসিন: এক দশক পরেও মা’কে খুঁজছেন চৌদ্দগ্রামে ৬০ কেজি গাঁজা সহ কাভার্ডভ্যান জব্দ দেবীদ্বারে কিশোরী ধর্ষণ মামলার আসামী গ্রেপ্তার দেবীদ্বার উপজেলা প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত “আনারসের জোয়ারে উত্তাল কুমিল্লা সদর দক্ষিণ : ইঞ্জিনিয়ার রিপনের বিজয়ের প্রত্যয়ে মুখরিত জনতা”

কুমিল্লা জেলার ট্রাফিক পুলিশ টি এস আই আশীষ কুমারের অসামান্য সেবার জন্য পুরষ্কার প্রাপ্তি

মোঃ সাখাওয়াত হোসেন :
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৪ মে, ২০২৪
  • ৩০৩৮ Time View

কুমিল্লা জেলার ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা তাদের অবিচল দায়িত্বশীলতা ও নিষ্ঠার জন্য পরিচিত। সম্প্রতি, টি এস আই আশীষ কুমার তার অসামান্য সেবা ও সততা নৈতিকতার জন্য কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান বিপিএম (বার) এর কাছ থেকে পুরষ্কার এবং সম্মাননা স্বারক গ্রহণ করেছেন। এই সম্মাননা তার কাজে নতুন গতি এনেছে এবং তিনি তার সহকর্মী ট্রাফিক ইন্সপেক্টর জিয়াউল চৌধুরী টিপু মহোদয় সহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

তবে, এই সম্মাননা পাওয়ার পাশাপাশি, ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা যে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে চলেছেন তা অনেকের অজানা। তীব্র তাপদাহে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে অনেক ট্রাফিক সদস্য অসুস্থ হয়েছেন, কিন্তু এর কোনো সঠিক হিসেব নেই। হিসেব না থাকার কারণ হলো, এরা অসুস্থ হলে কোথাও বলার সুযোগ নেই। বললেও ছুটি নেই, এজন্য অসুস্থতার পরিসংখ্যান কারো জানা নেই।

ট্রাফিক পুলিশ সাধারণ পুলিশ সদস্যদেরই একজন। তবে দায়িত্বের দিক থেকে এদের কাজ অনেক বেশি। দিনরাত রৌদ, বৃষ্টি উপেক্ষা করে নিজের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করে থাকেন এই সদস্যরা। বিভিন্ন নিয়ম এবং অনুশাসন দ্বারা রাজপথকে শান্ত অবস্থায় রাখে। শহর ভেদে ট্রাফিক পুলিশের সংখ্যা কম বেশি হলেও কাজ প্রায় সবার এক।

আমাদের প্রতিদিনের চলার পথকে যারা সহজ করে তোলে তাঁরাই হলেন ট্রাফিক পুলিশ। তাদের প্রধান কর্তব্য হলো সড়ক সুরক্ষা, সড়ক যান্ত্রিক নিয়ন্ত্রণ, যাতায়াত নিয়ম অনুসরণ, বিভিন্ন দূর্ঘটনা পরিস্থিতির নিয়ে নিরীক্ষণ করা, যাত্রীদের সমস্যার সমাধানে সাহায্য করা এবং জনগণের মনে সচেতনতা বাড়ানো। তারা বিভিন্ন প্রশিক্ষণ, সড়ক নিরাপত্তা পরিচালনা, এবং যাতায়াত নিয়ম সম্পর্কে জনগণের সাথে শিক্ষা ও সচেতনতা নিয়ে কাজ করে থাকে।

এ বিষয়ে টি এস আই আশীষ কুমারের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, “এই কৃতিত্ব আমার নয়, এটি আমাদের সকল ট্রাফিক বিভাগের সকলের।

“আমি চেষ্টা করবো আগামীতে আরও ভালো করার জন্য। এই সম্মাননা আমার কাজে গতি বৃদ্ধি করেছে। আমি আমার ট্রাফিক ইন্সপেক্টর জিয়াউল চৌধুরী টিপু মহোদয় সহ সংশ্লিষ্ট সকলের নিকট কৃতজ্ঞ,” বলেন টি এস আই আশীষ কুমার।

তার এই মনোভাব এবং কর্মদক্ষতা ট্রাফিক বিভাগের অন্যান্য সদস্যদের জন্য অনুপ্রেরণা হয়ে উঠেছে। তাদের অবদান এবং নিষ্ঠা শুধু যে তাদের নিজেদের জন্য নয়, বরং সমগ্র সমাজের জন্য এক অনন্য উদাহরণ স্থাপন করে। তাদের এই অবদান এবং সেবা সমাজের প্রতিটি স্তরে প্রশংসিত হয়ে থাকে।

তবে, এই সম্মাননা এবং প্রশংসার পাশাপাশি, ট্রাফিক পুলিশের সদস্যদের মুখোমুখি হওয়া চ্যালেঞ্জগুলো অবশ্যই উল্লেখযোগ্য। তীব্র তাপদাহে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে অনেক ট্রাফিক সদস্য অসুস্থ হয়েছেন, যার কোনো সঠিক হিসেব নেই। এই অসুস্থতার পরিসংখ্যান না থাকার কারণ হলো, এরা অসুস্থ হলে কোথাও বলার সুযোগ নেই, এবং বললেও ছুটি নেই। এজন্য অসুস্থতার পরিসংখ্যান কারো জানা নেই।

এই পরিস্থিতি সমাজের সচেতন নাগরিকদের মনে প্রশ্ন জাগিয়েছে যে, আমাদের যে ট্রাফিক পুলিশ প্রতিদিনের চলার পথকে সহজ করে তোলে, তাদের কল্যাণের জন্য আমরা কি যথেষ্ট করছি? তাদের সুরক্ষা এবং স্বাস্থ্যের প্রতি আমাদের দায়িত্ব কি পর্যাপ্ত? এই প্রশ্নগুলো আমাদের সমাজের সকল স্তরে আলোচনা এবং সমাধানের দাবি রাখে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com