1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
ভয়াবহভাবে বাড়ছে মাদকাসক্তের সংখ্যা - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৬:০২ অপরাহ্ন
Title :
তিতাসে জাগ্রত একতা সংঘের সভাপতি শফিকুল ইসলামকে সংবর্ধনা দেবীদ্বারে আগ্নেয়াস্ত্রসহ ডাকাত দলের ১ সদস্য গ্রেফতার চান্দিনায় শ্রমিক অবরোধ : পারিশ্রমিকের দাবিতে মহাসড়ক স্তব্ধ কুমিল্লায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ৫২ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারি গ্রেফতার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে শ্রমিক আন্দোলনে যানজট চৌদ্দগ্রামে গাঁজা-ইয়াবা উদ্ধার, কথিত সাংবাদিকসহ আটক ১৩ চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় কাভার্ডভ্যান চালক নিহত ঈদে পরিবার ছেড়ে রাস্তায় : হাইওয়ে পুলিশের অক্লান্ত সেবায় সুরক্ষিত যাত্রা “কলেজের করিডোরে হৃদয়ের হাসি : বৃষ্টি ও সাহিত্যের মিলন” পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই চক্রের মূল হোতা গ্রেফতার

ভয়াবহভাবে বাড়ছে মাদকাসক্তের সংখ্যা

মনির তালুকদার :
  • Update Time : শুক্রবার, ২৯ মার্চ, ২০২৪
  • ৩০৭৭ Time View

“মাদক” সমাজ জীবনের এক মারাত্মক ক্যান্সার। মরণনেশার অপর নাম মাদক। এর কুপ্রভাব ও পরিণতি সম্পর্কে সবাই মোটামুটি ওয়াকিবহাল। মাদক বিশ্বসভ্যতার জন্যে মারাত্মক হুমকি। বিশ্বে কল্যাণমুখি অগ্রগতি ঘটছে যেমন, তেমনি এর পাশাপাশি কুফল হিসেবে মানব জীবনের জন্যে ক্ষতিকর বেশ কিছু মারাত্মক উপাদান বিস্তার লাভ করেছে– এর মধ্যে মাদকদ্রব্য অন্যতম।

দেশের সব স্থানে মাদক পাওয়া যায়। রাজধানীর অভিজাত এলাকা থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত গ্রামেও পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন রকমের মাদক। নিত্য নতুন রূপে আসছে নতুন মোড়কে, দেশি-বিদেশি সিন্ডিকেটের হাত ধরে। সেইসঙ্গে বেড়ে চলেছে সারাদেশে মাদক সেবনকারীর সংখ্যাও।

দেশে প্রথমবারের মতো মাদকাসক্তের সংখ্যা নির্ধারণে জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট পরিচালিত এক সমীক্ষায় বলা হয়েছে– বর্তমানে দেশে মাদকাসক্ত মানুষের সংখ্যা প্রায় ৩৬ লাখ। এর মধ্যে ১৮ বছরের বেশি বয়সী মানুষের সংখ্যা ৩৫ লাখ ৩৫ হাজারের বেশি। আর ৭ বছরের বেশি, তবে ১৮ বছরের কম বয়সী শিশু-কিশোর ও তরুণদের মধ্যে মাদকাসক্তের সংখ্যা প্রায় ৫৭ হাজার।

সম্প্রতি প্রকাশিত ওই সমীক্ষায় বলা হয়েছে– ১৮ বছর বা তার বেশি বয়সী মানুষের মধ্যে ৩ দশমিক ৩ শতাংশ মাদকাসক্ত। ১২ থেকে ১৮ বছরের মধ্যে শূন্য দশমিক ৮ শতাংশ, ৭ থেকে ১২ বছরের শূন্য দশমিক ২ শতাংশ এবং ১৮ থেকে ২৭ বছরের মধ্যে ৬ দশমিক ৯ শতাংশ মানুষ মাদকাসক্ত।

সারা দুনিয়াব্যাপী উৎপাদিত পপির সিংহভাগ উৎপাদন হয় এশিয়ার তিনটি অঞ্চলে। থাইল্যান্ড, লাওস এবং বার্মার সীমান্ত অঞ্চল নিয়ে গোল্ডেন ট্রায়াঙ্গেল অঞ্চল। পকিস্তান, আফগানিস্তান, ইরান ও তুরস্ক নিয়ে গোল্ডেন ক্রিসেন্ট অঞ্চল এবং ভারত ও নেপাল সীমান্ত জুড়ে গোল্ডেন ওয়েজ অঞ্চল। এ সমস্ত অঞ্চলে সাম্রাজ্যবাদী কর্পোরেট অর্থায়নে সিআইএ’র দ্বারা ওই উৎপাদন চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে। বর্তমান বিশ্বে মাদক ব্যবসা তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির খাত হিসেবে ইতোমধ্যে চিহ্নিত। এক গবেষণাপত্রে দেখা যায়, মার্কিন কর্পোরেট ব্যবসায়ীরা মাদক ব্যবসায় বছরে প্রায় ৩২০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ অর্থ মুনাফা করে– যা তাদের অস্ত্র ব্যবসায় যে পরিমাণ মুনাফা করে সেই মুনাফার এক চতুর্থাংশের সমপরিমাণ।

বাংলাদেশ মাদক উৎপাদনকারী দেশ না হলেও পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে চোরাচালানের মাধ্যমে দেশে প্রচুর মাদকদ্রব্য প্রবেশ করছে। আর তার প্রভাবে দেশে মাদকাসক্তের সংখ্যা বাড়ছে। দেশে মাদকাসক্তির এই ভয়াবহ অবস্থাকে উদ্বেগজনক বলছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এক্ষুণি ব্যবস্থা না নিলে তা ভয়াবহ আকার ধারণ করবে। তবে নিয়ন্ত্রণের জন্যে চলছে গ্রেপ্তার, ক্রসফায়ার, মামলা ইত্যাদি। কিন্তু মূল অপরাধীরা সাধারণত অধরাই থেকে যাচ্ছে। আইনের ফাঁকফোকর গলিয়ে ওরা নিস্তার পাচ্ছে মামলা থেকে।

পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ২০১১ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ৭২ হাজার ৫৫০টি মামলা করেছে। এর মধ্যে নিষ্পত্তি হয়েছে মাত্র ২০ হাজার ৩৫০টি। ৯ হাজার ৩৫২টি মামলার ১১ হাজার ৬৩৫ জন আসামি খালাস পেয়েছে। পুলিশ সদর দপ্তরের রিপোর্টে দেখা গেছে, ২০১৭ সালের অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত নিষ্পত্তিকৃত মামলার ৬৪ শতাংশ আসামি খালাস পেয়েছে। এর প্রধান কারণ হলো তদন্তে গাফিলতি, সঠিকভাবে জব্দ তালিকা না করা, সাক্ষীদের জবানবন্দি গদবাঁধা নিয়মে লেখা, চার্জশিটে মারাত্মক ত্রুটি ইত্যাদি। তাছাড়া রাষ্ট্রপক্ষের মামলা পরিচালনা, সাক্ষীর উপস্থিতি ও সাক্ষ্য, জেরা, জবানবন্দি ইত্যাদির দুর্বলতার কারণেও মামলার আসামিরা খালাস পেয়ে যায়।

এই অবস্থা থেকে বের হয়ে আসার জন্যে প্রশাসনকে যে কাজগুলো করতে হবে তার মধ্যে মাদক মামলা নিষ্পত্তির জন্যে প্রতিটি জেলায় আলাদা আদালত গঠন করা যেতে পারে। সেক্ষেত্রে দায়রা আদালতে বিচার্য মামলার জন্যে একজন এবং ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বিচারকাজ পরিচালনার জন্যে একজন বিচারক নিয়োগ করা যেতে পারে। এতে করে মাদকের মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি হবে বলে আশা করা যায়। মাদকের মামলা পরিচালনার জন্যে জেলার একজন সৎ আইনজীবী বাছাই করে বিশেষ প্রতিক্ষণের মাধ্যমে ওই বিশেষ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) নিয়োগ দিতে হবে। ক্ষেত্রেত্রে পিপি যদি তার পেশাগত কোনো অসদাচরণ করেন, তাহলে তাৎক্ষণিভাবে ব্যবস্থা নিতে হবে। যদি দ্রুত ব্যবস্থা না নেওয়া হয়– তবে মামলার জট বাড়তেই থাকবে।

এছাড়া থানায় মাদকের মামলা তদন্তের জন্যে আলাদা সেল থাকতে হবে। সেক্ষেত্রে একজন ইন্সপেক্টর এবং পর্যাপ্ত সংখ্যক এসআইয়ের সমন্বয়ে সেল গঠন করা যেতে পারে, যারা তদন্ত সংক্রান্ত কাজে বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হবেন। ওই সেল মামলা তদন্ত করে চার্জশিট দাখিল করেই তাদের কাজ শেষ করবে না, বরং সাক্ষীদের আদালতে উপস্থিতির জন্যে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। সেক্ষেত্রে সাক্ষী নির্ধারণে পুলিশকে আরো সতর্ক হতে হবে। মামলা বিচারকালে জব্দকৃত মালামাল আদালতে উপস্থাপনের জন্যে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা অবশ্যই করতে হবে।

কারাগারে মাদক মামলার আসামিদের জন্যে আলাদা ওয়ার্ডের ব্যবস্থা করতে হবে। এতে করে তারা অন্য আসামিদেরকে প্ররোচিত করতে পারবে না। তাছাড়া কারাগারে Motivation program এর ব্যবস্থা করতে হবে। কারাবন্দিরা আদালতে আসা-যাওয়া এবং কোর্ট-হাজতে থাকাকালে যাতে মাদকের সংস্পর্শে আসতে না পারে সেজন্য বাস্তব ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। এটা ঠিক যে, কিছু অসাধু কারারক্ষী মাদক পাচারে সহযোগিতা করে থাকে। ওই কারারক্ষীরা টাকা পেলে এমন কাজ নেই যা করতে পারে না। এ ব্যাপারে কারাকর্তৃপক্ষকে আরো বেশি সচেতন থাকতে হবে– যাতে করে আরো বেশি কঠোর ব্যবস্থা তরা নিতে পারে। এক্ষেত্রে বিশেষ করে কোর্ট হাজতখানায় তাদের নজরদারি আরো বেশি বাড়াতে হবে।

এসব প্রস্তাব আলোচনা-পর্যালোচনা এবং যাচাই-বাছাইপূর্বক প্রয়োজন মাদকপ্রবণ কয়েকটি জেলায় পাইলট প্রজেক্ট হিসেবে প্রয়োগ করে দেখা যেতে পারে ফলাফল আশানুরূপ হলে অন্য জেলাগুলোতেও এই প্রজেক্ট প্রয়োগ করা যেতে পারে।

এখানে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো– যাদের মাধ্যমে মাদক নিয়ন্ত্রণ করা হবে তারাই যদি আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়ে সহযোগিতা করে, প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জড়িত থাকে, আসামি গ্রেপ্তার না করার ভান করে বা আসামি গ্রেপ্তার করে ছেড়ে দেয়, তাহলে মাদক নিয়ন্ত্রণের আশা করা যায় না। মাদকের কাজে যদি পররাষ্ট্র-স্বরাষ্ট্র বা অন্য মন্ত্রির গাড়ি ব্যবহার করার সুযোগ করে দেওয়া হয় তবে কোনো দিনই মাদক নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না। এক্ষেত্রে পুলিশ ও বিজিবি সদস্যদের নীতি-নৈতিকতা আরো উন্নত করতে হবে। যাদের বিরুদ্ধে এ কাজে আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়ার অভিযোগ আছে তাদের কড়া নজরদারিসহ নিষ্ক্রিয় করতে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। জেলা পুলিশ সুপার মাদক নিয়ন্ত্রণের জন্যে নিজস্ব সেল রাখবেন, নিয়মিত ফলোআপ করবেন, এবং তার বাহিনীতে গোয়েন্দা রাখতে পারেন। তারা এ সংক্রান্ত তথ্য সরাসরি এসপি বরাবর জানাবেন। পত্রপত্রিকার খবরে প্রায়ই প্রকাশিত হয় যে, থানা পুলিশ কোনো ব্যক্তির কাছে মাদকদ্রব্য পায়নি, তবুও অন্যপক্ষ দ্বারা প্ররোচিত হয়ে তাকে মাদক দিয়ে চালান করা হয়েছে। এসব ঘটনা সব যে সত্য তা নয়, তবে সব মিথ্যা নয়। এটা সত্য যে, কারো সাথে সম্পত্তি সংক্রান্ত বিরোধ আছে– সেক্ষেত্রে পুলিশকে ম্যানেজ করে সহজলভ্য ইয়াবা দিয়ে প্রতিপক্ষকে চালান দেয়া হয়েছে। রাজনৈতিক, ব্যবসায়িক, পারিবারিক ও ব্যক্তিগত শত্রুতার রেষারেষিতে কেউ বলিরপাঁঠা হতেই পারেন। এ ক্ষেত্রে ওই পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

প্রচুর অভিযোগ আছে, থানার মালখানায় প্রচুর মাদকদ্রব্য থাকে যা দিয়ে হয়রানি করা হয় নিরীহ মানষকে। সেক্ষেত্রে মাদকদ্রব্য প্রেরণের সঙ্গে সঙ্গেই নমুনা সংরক্ষণ কিংবা রাসায়নিক পরীক্ষায় পাঠানোর জন্যে প্রয়োজনীয় মাত্রায় বাদ দিয়ে বাকি মালামাল আদালতে পাঠাতে হবে। আদালতে আলামত আসার পর তদন্ত কর্মকর্তা, আদালতর জিআরও এবং দায়িত্বপ্রাপ্ত ম্যাজিস্ট্রেটের যৌথ স্বাক্ষরে সিলগালা করা হবে এবং সঙ্গে সঙ্গেই মালখানায় পাঠাতে হবে।

আলামত ধ্বংস করার আগে সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেট প্রতিটি আলামত তিনজনের স্বাক্ষর আছে কিনা কিংবা প্যাকেট যথাযথ আছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেকবেন, তারপর আলামত ধ্বংস করবেন।

আমাদের রাষ্ট্র বা সমাজে মাদক নিয়ন্ত্রণের জন্যে রাজনৈতকি সদিচ্ছা খুবই জরুরি। একারণে যে, সরকারি বা বিরোধী দলের নেতাদের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে বেড়ে ওঠা কর্মী মাদক চোরাচালানের সঙ্গে এদের সংশ্লিষ্টতা দেখা গেছে। সেক্ষেত্রে নেতৃত্ব নির্বাচনে অথবা মনোনয়নে মাদকসংশ্লিষ্টতা অযোগ্য বলে গণ্য করতে হবে। তবে নেতাকর্মীদের মাঝে মাদক সংশ্লিষ্টদের বিষয়ে দলীয় কঠোর সিদ্ধান্তও ভাল ফল দিতে পারে।

মাদক নিয়ন্ত্রণের জন্যে আইনের কঠোরতা যেমনি প্রয়োজন, তেমনি প্রয়োজন সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি।

সেক্ষেত্রে, যে যার অবস্থান থেকে মাদকবিরোধী প্রচারণা, জনসম্পৃক্ততা বৃদ্ধি, মাদকবিরোধী সমাবেশ সেমিনার-পদযাত্রা, Motivation program-এ রাষ্ট্রের পৃষ্ঠপোষকতা, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে পুরোপুরি মাদকমুক্ত সমাজ গড়া সম্ভব না হলেও–আমাদের সমাজের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীকে মাদকমুক্ত করা যাবে বলে আমি বিশ্বাস করি।

লেখক : রাজনীতিক ও কলামিস্ট

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com