1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
কিস্তি পরিশোধের চাপে আত্মহত্যা সুনির্দিষ্ট মামলা হলো না কেন? - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১২:১১ পূর্বাহ্ন
Title :
কুমিল্লায় বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক ফোরামের বিভাগীয় সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডের প্রস্তুুতি সভা সমাপ্ত কুমিল্লায় জোড়া খুনের মামলায় ০৬ জনের মৃত্যু দণ্ড, ৭ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ছিনতাইয়ের ৩৬ ঘন্টার মধ্যে মালামাল উদ্ধারসহ গ্রেফতার দুই নগরীর পূর্বালী চত্বরে ‘শান্তি সমাবেশ’ করেছে মহানগর ছাত্রলীগ উপজেলা পরিষদ এসোসিয়েশন কুমিল্লা’র নতুন কমিটি : ইউনুস ভূইয়া সভাপতি ও এড. টুটুল সাধারণ সম্পাদক চৌদ্দগ্রামে ২৫ কেজি গাঁজাসহ আটক ২, সিএনজি অটোরিকশা জব্দ চৌদ্দগ্রামে ৬০ কেজি গাঁজা সহ ডিবির হাতে আটক ৩ চোরাকারবারিদের কালো থাবা, যাচ্ছে ইলিশ আসছে মাদক! ভুট্টা ক্ষেতে প্রবাসীর স্ত্রীর মরদেহ ডিবি পুলিশের অভিযানে চার মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

কিস্তি পরিশোধের চাপে আত্মহত্যা সুনির্দিষ্ট মামলা হলো না কেন?

মাসুক আলতাফ চৌধুরী :
  • Update Time : রবিবার, ৩১ মার্চ, ২০২৪
  • ৩০৮৬ Time View

এনজিও’র কিস্তি পরিশোধের চাপ- পীড়ন  সইতে না পেরে কুমিল্লার রাজাপাড়ায় নিজ বাড়ীতে আত্মহত্যা করেছেন গৃহবধূ শামছুন্নাহার (৪০)। দেশ বিশেষ করে কুমিল্লার অধিকার কর্মী ও নারী নেত্রীরা এ নিয়ে এখনও সরব হন নি। গণমাধ্যমে শুরুতেই খবরটি এসেছে। তারপরও চাপ অনুভব করছে না পুলিশ। তাই যথানিয়মেই অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। কারণ মরদেহ পুলিশই উদ্ধার করেছে। ময়নাতদন্তও হয়েছে। এখন তদন্ত চলছে, ধীর গতিতে। চার দিন চলে গেছে, তারপরও এমন মর্মান্তিক মৃত্যুর প্রতিবাদ নেই। তাই গুরুত্ব হয় নি পুলিশি অ্যাকশনেও। যদিও থানা- পুলিশ বলছে তদন্তে প্ররোচনাসহ কারও অন্য অপরাধ থাকলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এটাও সত্য এমন করেই, এরকম পুলিশি ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে অপরাধী পাড় পেয়ে যায়। আইনের যথাযথ প্রয়োগ যখন স্বাভাবিক নিয়মে খুব একটা হয় না, বিশেষ করে নারীর এমন মৃত্যুর ক্ষেত্রে, তখন গণমাধ্যম কিংবা নাগরিক- সুশীল সমাজের একটা হৈচৈ- প্রতিবাদ লাগে। এইতো মাত্র ক’দিন আগেও কুমিল্লার মেয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী অবন্তিকার আত্মহত্যা নিয়ে সোচ্চার হয়েছে পুরো দেশ। তাই শুরু থেকেই তদন্ত – আইনের প্রয়োগে এর সুফল দেখা যাচ্ছে। গণমাধ্যম নিয়মিত অবন্তিকার খবর ফলোআপ করছে – যাকে বলা চলে পিছু লাগা। অবন্তিকা এখন জাতীয় ইস্যু-বড় ঘটনা- বিবেক,সমাজ, দেশকে নাড়া দিয়েছে। আর অল্প দিনের ব্যবধানে ঋণের বোঝায় চলে যাওয়া শামছুন্নাহারের মৃত্যু রহস্য চাপা পড়ে আছে, যাচ্ছে।গণমাধ্যমের ভাষ্য, দুই সন্তানের জননী শামছুন্নাহারের স্বামী নাসির উদ্দিন সৌদি আরবে কর্ম করেন। গেল অক্টোবরে এক লাখ টাকা ঋণ নেন শামছুন্নাহার। এগার কিস্তির দু’টো পরিশোধ করেছেন। এ বছরের প্রথম তিন মাসের তিন কিস্তি বকেয়া পড়েছে। জাতীয় এনজিও – বাংলাদেশ এক্সটেনশন এডুকেশন সার্ভিসেস (বিজ) থেকে ওই ঋণ নেন তিনি। ২০১৬ থেকে এনজিওটি কুমিল্লায় ঋণ কার্যক্রম চালাচ্ছে। যতটুকু জানা গেছে এনজিওটি সরকারের নিয়মেই  কাজ করছে।

 

কিন্তু ঘটনাটি মারাত্মক। ঋণ পরিশোধে তাকে মাত্রাতিরিক্ত চাপাচাপি- পীড়ন করা হয়েছে এ অভিযোগ এলাকাবাসীর।

ঋণ আদায়ে এনজিও কর্মী ঘরে এসে বসে থাকতো। প্রতিবেশীরা জানতো, এনিয়ে খুঁনসুটিও চলতো- যা ছিল অপমাণ, লজ্জার। কেমন পীড়ন, গত মাসে কিস্তি পরিশোধ ব্যর্থ হওয়ায় ওই এনজিও’র নারী মাঠ কর্মীর বেতন কেটে নিয়ে ঋণ সমন্বয় করা হয়েছে। এবার ঈদের মাস। এবারও শামছুন্নাহার ব্যর্থ, আবারও আদায়কারী কর্মীর বেতন কাটার সিদ্ধান্ত। এমন কঠিন সিদ্ধান্ত থেকে বাঁচতেই ওই মাঠ কর্মী শামছুন্নাহারের ঘরে তালা লাগিয়ে দেয়। যার নিষ্ঠুর পরিণতি এই আত্মহনন, এ অভিযোগ এলাকাবাসীর। নতুন তালা ভেঙে তাঁর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এটাতো শুধু প্ররোচনা নয়, মারাত্মক ফৌজদারি অপরাধ। এরজন্যে এলাকাবাসী ও পরিবারের সাক্ষ্যই যথেষ্ট। কেন সময়সাপেক্ষ পূর্ণাঙ্গ ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। কেন এর জন্য পারিপার্শ্বিক অবস্থা ও বক্তব্য, মরদেহের সুরতহাল ও প্রাথমিক ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন যথেষ্ট মনে করা হচ্ছে না। আপাততঃ কারণ একটাই পুলিশের ওপর চাপ নেই।

এনজিও কর্মীরা নিজেরাই চাপাচাপি- পীড়নের কথা স্বীকার করেছে। প্ররোচনার অভিযোগের জন্যে এতোটুকুই যথেষ্ট নয় কি। যদিও তারা বলছে তার আরও ধার দেনার চাপ ছিল। আরও বেশ ক’টি এনজিও থেকেও ঋণ নিয়েছিলেন তিনি। বাংলাদেশে এমন চর্চা এখন সব ক্ষুদ্র- প্রান্ত মানুষই করতে বাধ্য হচ্ছেন। এতে তিনি স্বাবলম্বী না হয়ে উল্টো ঋণের একটা বড় চক্রে পড়ে সব খুইয়ে একেবারে ঋণগ্রস্ত – নিঃস্ব হয়ে যান। এটা আরেকটা সামাজিক অবস্থা- ভিন্ন বির্তক। ধরে নিলাম তার চাহিদা ছিল, তাড়াও ছিল। তিনিতো গৃহবধূ। নারী উদ্যোক্তা ছিলেন না। এ দায়তো এনজিওটি এড়াতে পারে না। তিনি বড়জোর তাদের সমিতির সদস্য হিসেবে ক্ষুদ্র ঋণ পেতে পারতেন। যত চাহিদাই থাকুক তিনি অধিক ঋণগ্রস্ত থাকায় ঋণ পরিশোধে কোন ভাবেই সামর্থবান ছিলেন না- তার ঋণগ্রহণ যোগ্যতাই ছিল না। এ দায়ও কি ভাবে এড়াবেন এনজিওটি। আসলে এনজিও কর্মীদেরও টার্গেট দেওয়া থাকে। তখন টার্গেট সফল করতে তারাও নিয়ম- কানুনের ধার ধারেন না। কারণ এখন আর এটা সেবা না, সুদিব্যবসা। রুপান্তরিত নব্য বর্গীদের আগ্রাসন। যে গরিব একবার এমন ঋণ নেয়, সে সাময়িক কয়েক বছর ঋণের জালে ভালো থাকে। শেষে হারিয়ে যায়। নতুন ঋণী আবার ঋণ নেয়। এভাবেই দেশের এনজিওগুলো এ ব্যবসা করে যাচ্ছে। যাকে তারা সেবা বলছেন। ক্ষুদ্র ঋণের সফলতার পাশাপাশি ব্যর্থতারও করুন ইতিহাস আছে- যা পর্যালোচনার দাবি রাখে।

 

শামছুন্নাহার এনজিও’র চাপ সইতে না পেরে অন্য এনজিও থেকে দেড় লক্ষ টাকা আরও ঋণ করে আপাততঃ পাওনা পরিশোধের একটা চেষ্টায়ও  ছিলেন। পরে বাপের বাড়িতে পাওয়া সামান্য জমি বিক্রি করে সব এনজিওর সব ঋণ একেবারে শোধ করে মুক্তি নিয়ে নেবেন, এ পরিকল্পনা এলাকাবাসীও জানেন। কিন্তু পারেন নি। যা হয়তো ঈদের আগে বলে সম্ভব হয় নি। তাই মৃত্যুর কাছেই হার মানলেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটোরি অথরিটি (এমআরএ) এর লাইসেন্স দেয় ও রেগুলেশন দেখভাল করে- নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠান। এনজিওরা মাসিক প্রতিবেদন পাঠায়, মাঝে মধ্যে অডিট আসে। অথরিটি আসলে দেখে, গরিবের সঞ্চয় ও মূলধনের সঠিক ব্যবহার হচ্ছে কিনা। কোন এনজিও যাতে রাতের আঁধারে লোপাট হয়ে না যায়, কারণ লক্ষ লক্ষ মানুষের সঞ্চয় আছে এনজিওদের মূলধনে। একটা নূন্যতম বেঁধে দেওয়া নিয়মের মধ্যে অনুমোদিত করে এ ব্যবসা পরিচালনা করতে দেওয়া। প্রাথমিক মূলধন, সুদ, সঞ্চয়- এর চক্রবৃদ্ধিই এক সময় বিরাট মূলধনে পরিণত হয়। ব্যাংগুলোও সহজ শর্তে এনজিওদের ঋণ দেয়- যা তাদের ক্ষুদ্র, উদ্যোক্তাসহ নানা ঋণ প্রবাহে আবর্তন করতে থাকে। এতে আদায়ের ঝুঁকি একেবারেই নেই বললেই চলে। তাই তহবিলের অভাব হয় না।

শামছুন্নাহারের স্বামী বিদেশ, তাঁরপরও তাকে একাধিক ঋণ নিতে হলো। মেয়ে বিয়ে দিয়ে দিয়েছেন। ছেলেও কম লেখা পড়া করে এখন সামান্য বেতনের কর্মজীবী। রাজাপাড়ায় সামান্য জায়গা  কিনে কোনরকম টিনসেডের আধাপাকা ঘর তুলে থাকছেন। তাদের বাড়ি পাশের চাঁদপুর জেলার শাহারাস্তি উপজেলায়। মরদেহ সেখানেই দাফন করা হয়েছে। ঘটনার পেছনে হয়তো সাংসারিক আরও অনেক কারণ থাকতে পারে, থাকা স্বাভাবিক। তবে মোটামুটি অবস্থা সম্পন্ন পরিবার। তাই লোকলজ্জা ও সামাজিক ভয় ছিল, আত্মমর্যাদায় লেগেছে। কিন্তু এমন চলে যাওয়া কোন ভাবেই স্বাভাবিক মেনে নেয়া যায় না।

করোনাকালে সরকার চিঠি দিয়ে এনজিওদের কিস্তি আদায় বন্ধ রেখেছিল। এখন দেশে একটা নীরব অভাব চলছে। বিশেষ করে ঈদের আগে এমনিতেই পরিবারে বাড়তি অর্থের চাহিদা থাকে। তাই এই সময় অর্থাৎ ঈদের দুই সপ্তাহ আগ থেকে পরের দুই সপ্তাহ বা ঈদের মাস এনজিওদের কিস্তি পরিশোধে বাধ্যবাধকতা উঠিয়ে দিতে হবে। সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ বিষয়টি ভেবে দেখতে পারেন। কারণ একজন শামছুন্নাহারের আত্মহত্যা হয়তো অনেক প্রশ্নকে সামনে নিয়ে এসেছে। এমন মর্মান্তিক মৃত্যু হয়তো এমন অবস্থারই নির্মম বাস্তবতা। তার আগে যা হয়তো কেউ ভেবে দেখেনি, পাত্তা পায়নি- আলোচনায় আসে নি এখনও। তবে দেশে এমন মৃত্যুর আরও ঘটনা আছে, চলছে।

জেলা প্রশাসক সরকারের পক্ষে এনজিওদের নিয়ে মাসিক নিয়মিত সমন্বয় সভা- মনিটরিং করেন। বৃহস্পতিবার ২৮ মার্চ সকাল ৯-১০ টার দিকে দুর্ঘটনাটি ঘটে। ওইদিন এর পরপরই কাকতালীয় ভাবেই কুমিল্লায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষেও মাসিক এনজিও সমন্বয় সভা হয়েছে যথারীতি।  তখনও খবরটি ছড়ায় নি। এমন করে জানলে এই মর্মস্পর্শি ঘটনা তাঁর হৃদয়ও ছোঁয়ার কথা। তাই জেলা প্রশাসকও এনজিওদের সমন্বয়ে তদন্ত কমিটি করতে পারেন। তিনি দ্রুত উদ্যোগ নেবেন আশা করি।

দেশ বিশেষ করে কুমিল্লার অধিকার- নারী নেত্রীদের অধিকাংশই নিজেদের এনজিও চালান। দেশের অধিকাংশ অধিকার কর্মীও এনজিওর মালিক। তাই বলে এমন হৃদয়স্পর্শী নির্মমতায় চুপ থাকা কেন। অধিকারতো চাইতে হয়। সোচ্চার দাবির প্রয়োজন হয় কখনও কখনও। না হলে এমন বাস্তবতা ঘটতেই থাকবে। যা মোটেও কাম্য নয়। আপনারা ঘোর কেটে জেগে উঠুন। স্বজাতির বিরুদ্ধে তদন্ত- বিচার চাইলে আপনাদের ভাবমূর্তি  সমাজে আরও স্বচ্ছ হবে, এটা সমাজ আশা করে। আপনারাতো অপরাধের বিচার চাইবেন। সত্য উদঘাটনে দ্রুত তদন্ত দাবি করবেন।

এনজিও বিজ অবশ্য নিজেদের নির্দোষ দাবি করেছে। কিন্তু ঋণী বাছাই সঠিক ছিল কিনা, পুরো প্রক্রিয়া- আদায়ে যথাযথ নিয়ম অনুসরণ করা হয়েছিল কিনা, পীড়ন ফৌজদারি অপরাধে ধর্তব্য কিনা, তালা মারা হলো কেন- এসবের উত্তর কে দিবে। বিজের এনজিওর কর্মকর্তারা, মালিক- প্রধান কেউ এলেন না, খোঁজ-খবর নিলেন না, পাশে দাঁড়ালেন না, নিজেরা তদন্তের ব্যবস্থা নিলেন না, যদি নিয়েও থাকেন সংবাদ মাধ্যমে জানালে মানুষ জানতে পারতো, আশ্বস্ত হতো। ম্যানেজার, সুপারভাইজার, মাঠকর্মীর- ব্যবস্থাপনার গাফিলতি বা বাড়াবাড়ি খতিয়ে দেখবে কে। মোট কথা কেন এমন হলো? এর উত্তর খোঁজা জরুরি নয়। দেশে এমন ঘটনা আরও ঘটেছে, ধামাচাপা পড়েছে। কারও কিছুই হয় নি -গরিবের এমন মৃত্যু বলে। এ প্রবণতা বন্ধ হওয়া দরকার না।

পুলিশ গতানুগতিক ধারা থেকে বেড়িয়ে দ্রুত সত্য বের করে আনবেন, এমনটাই মানুষ আশা করে। ঘটনার চার দিন চলে গেছে।  কম সময় নয়। আর দেরি কিসের। তদন্তে ঘটনা সত্য হলে আইনের দ্রুত প্রয়োগ- সুনির্দিষ্ট মামলা ও দোষীদের গ্রেফতার করা, বিচারের আওতায় আনা দরকার । দৃষ্টান্ত শাস্তি হলে এমন অপরাধ প্রবণতা কমবে।

লেখকঃ সাংবাদিক

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com