1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
কুমিল্লার তিন ওয়ার্ডে কেন এতো লাশ? - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৪:৫৩ অপরাহ্ন
Title :
তিতাসে জাগ্রত একতা সংঘের সভাপতি শফিকুল ইসলামকে সংবর্ধনা দেবীদ্বারে আগ্নেয়াস্ত্রসহ ডাকাত দলের ১ সদস্য গ্রেফতার চান্দিনায় শ্রমিক অবরোধ : পারিশ্রমিকের দাবিতে মহাসড়ক স্তব্ধ কুমিল্লায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ৫২ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারি গ্রেফতার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে শ্রমিক আন্দোলনে যানজট চৌদ্দগ্রামে গাঁজা-ইয়াবা উদ্ধার, কথিত সাংবাদিকসহ আটক ১৩ চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় কাভার্ডভ্যান চালক নিহত ঈদে পরিবার ছেড়ে রাস্তায় : হাইওয়ে পুলিশের অক্লান্ত সেবায় সুরক্ষিত যাত্রা “কলেজের করিডোরে হৃদয়ের হাসি : বৃষ্টি ও সাহিত্যের মিলন” পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই চক্রের মূল হোতা গ্রেফতার

কুমিল্লার তিন ওয়ার্ডে কেন এতো লাশ?

মোঃ বিল্লাল হোসেন :
  • Update Time : শনিবার, ২৫ মে, ২০২৪
  • ৩১৭৮ Time View

কুমিল্লা নগরীর ৬, ১৬ ও ১৭ নং ওয়ার্ডে অপরাধ ও মাদকের সহজলভ্যতা এক ভয়াবহ চিত্র তুলে ধরেছে। সম্প্রতি এই দুই ওয়ার্ডে ঘটে যাওয়া একাধিক হত্যাকান্ড ও অপরাধের ঘটনা স্থানীয় জনগণের মাঝে গভীর উদ্বেগ ও আতঙ্কের সঞ্চার করেছে। এই অপরাধ প্রবণতা রোধে পুলিশ, সাংবাদিক এবং জনপ্রতিনিধিদের করণীয় নিয়ে জনমনে প্রশ্ন উঠেছে।

কিশোর গ্যাংয়ের সক্রিয়তা, মাদক পাচার, জলাশয় ভরাট এবং গোমতী নদীর মাটি ও বালু উত্তোলনের মতো ঘটনা বেড়ে চলেছে। এসব অপরাধের পেছনে রাজনৈতিক নেতাদের ছত্রছায়া থাকার অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসীর মতে, একাধিক হত্যা মামলার আসামিদের জামিন এবং নিজেদের অবস্থান জানান দিতে মহড়ার ঘটনা অপরাধের মাত্রা বাড়িয়ে তুলেছে।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানিয়েছেন, এতো হত্যাকান্ডের পরও এদের লাগাম টানার কেউ না থাকায় লাশের মিছিলে একেরপর এক নিহতের নাম যোগ হচ্ছে। তারা এমপি আ ক ম বাহাউদ্দীন বাহার সহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। তাদের মতে, দ্রুত অপরাধীদের তালিকা করে এদের উপর নজরদারি বৃদ্ধি করলে অপরাধের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে বলে মনে করেন এলাকাবাসী।

এই অপরাধ প্রবণতা রোধে পুলিশ ও সাংবাদিকদের আরও সক্রিয় ভূমিকা পালন এবং জনপ্রতিনিধিদের এই বিষয়ে সচেতন হওয়া এবং কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া দাবিও তুলেন ভুক্তভোগীর পরিবার। এলাকার জনগণের নিরাপত্তা এবং শান্তি পুনরুদ্ধারে সকলের ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা অপরিহার্য।

সংবাদ মাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সংবাদ মাধ্যমকে এই অপরাধ প্রবণতার বিরুদ্ধে জনসচেতনতা তৈরি করতে হবে এবং সঠিক তথ্য প্রকাশ করে জনগণকে অবগত করতে হবে। জনপ্রতিনিধিদের এই বিষয়ে আরও সক্রিয় ও দায়িত্বশীল হওয়ার অনুরোধ স্থানীয়দের।

স্থানীয় সূত্র জানান, কুমিল্লার এই দুই ওয়ার্ডের অপরাধ প্রবণতা রোধে কার্যকর পদক্ষেপ ও এলাকার জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হোক।

দুই ওয়ার্ডের জনপ্রতিনিধিরা প্রশাসনের সাথে সমন্নয় করে অপরাধীদের তালিকা করে নজরদারি বাড়াতে সহযোগিতার মত দিয়েছেন সুশীল সমাজের লোকজন।

বিগত সময়ে যারা খুন হয়েছেন:

সংরাইশ চাঞ্চল্যকর মুহিন (১৩) হত্যার পর এলাকাজুড়ে শোকের ছায়া নেমে আসে। এরক্ষত না শোকাতেই হত্যাকাণ্ডের শিকার হন নিহত মুহিনের আপন চাচা শহীদ (৪৫) যা এলাকায় আতংকের সৃষ্টি করে।

জানু মিয়া (৩৮) হত্যাকাণ্ডের পর লাশের মিছিলে যোগ হয় অন্তু (৩০)। নগরীর ১৬ নং ওয়ার্ডের নবগ্রম এলাকার ফয়সাল (২৮) সুজানগর এলাকার হৃদয় (২৫) জনপ্রিয় কাউন্সিলার ও আওয়ামীলীগ নেতা সৈয়দ সোহেল ও হরিপদ সাহা হত্যার পর এলাকাবাসী একজন মানবিক অবিভাবক হারিয়েছে যে শূন্যতা কখনো পূরণ হওয়ার নয়। জনপ্রিয় মতিন সর্দার হত্যার পর ১৬ নং ওয়ার্ডবাসী হারালো একজন ন্যায় পরায়ন ব্যক্তি। এছাড়াও টিক্কারচর খুন হন শুভপুরের মোশাররফ। টিক্কারচর গোমতী সেতুর পূর্বে গোমতী কফি হাউজ থেকে অটো চালক জুনু মিয়ার মরদেহ উদ্ধার করেন পুলিশ। এ ঘটনায় নিরপরাধ ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী আক্তার হোসেনকে জুনু হত্যা মামলায় কারাগারে পাঠানো হয়।

সর্বশেষ ৮ দিন পর মিশুক চালক মোঃ পরান মিয়ার (৪০) মরদেহের সন্ধান পাওয়া গেছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লা ময়নামতি ক্রসিং হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ ইকবাল বাহার মজুমদার।

জানা যায়, গত ১৭ মে সন্ধ্যা থেকে নিখোঁজ পরান মিয়ার খোঁজ না পাওয়ায় পরিবারের পক্ষ থেকে কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানায় ভোলা মিয়া সহ অজ্ঞাতনামা কয়েকজনের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন স্ত্রী মরিয়ম বেগম (৩৪)। পরে স্থানীয় পত্রপত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হলে বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে প্রশাসন নিখোঁজ মিশুক চালকের সন্ধানে মাঠে নামে। গত ১৭ মে রাতে ময়নামতি ক্রসিং হাইওয়ে থানার এসআই খোরশেদ আলম হারাতলী এলাকার পরিত্যক্ত একটি সিএনজি পাম্পের কাছ থেকে এক অজ্ঞাত ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করে পরিবারের সন্ধান না পেয়ে কুমিল্লা নগরীর টিক্কারচর এলাকার আঞ্জুমান কবরস্থানে বেওয়ারিশ হিসেবে মরদেহটি দাফন করে। এ ঘটনায় কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়। ময়নামতি ক্রসিং হাইয়ে থানা পুলিশ পরিবারের সন্ধান পেতে মরদেহের আঙুলের ছাপ সিআইডির নিকট পাঠায়। সার্ভারে সমস্যা থাকায় ঠিকানা আসতে দেরি হয়। গতকাল শুক্রবার (২৪ মে) লাশটির ঠিকানা পেলে পরিবারের নিকট খবর পাঠানো হয়। সংবাদ পেয়ে ময়নামতি ক্রসিং হাইয়ে থানায় পরিবারের সদস্যরা গিয়ে ছবি দেখে মরদেহ সনাক্ত করেন।

পরানের স্ত্রী মরিয়ম বেগম বলেন, আমার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। আমি নিখোঁজের পরদিন কোতয়ালি মডেল থানায় ভোলা মিয়া সহ অজ্ঞাতনামা করেকজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছিলাম। তাদের গ্রেফতার করতে পারলে আমার স্বামীর হত্যাকারীদের চিহ্নিত করা যাবে। তিনি আরও বলেন, আমার বাড়ির ভিতর ভোলা সহ একটি গ্রুপ মাদকের আখড়া জমায় এতে আমাদের চলাচলে বিঘ্ন ঘটায় আমার স্বামী সহ পরিবারের সবাই বাঁধা দিলে এই নিয়ে তাদের সাথে আমাদের বিরোধ হয়। আমার স্বামীর সন্ধান পাওয়ার আগের এদিনও আমার দেবর সহ আমাদের মারধর করেন।

কুমিল্লা ময়নামতি ক্রসিং হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ ইকবাল বাহার মজুমদার বলেন, লাশ পাওয়ার পর লাশের অবস্থা এতটাই খারাপ ছিলো আমরা পরে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করি। এখন পরিবারের সন্ধান পেয়েছি। বিষয়টি তাদের অবগত করেছি।

কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ ফিরোজ হোসেন বলেন, পরান মিয়ার স্ত্রীর অভিযোগ পেয়ে আমরা কাজ শুরু করি। যেহেতু তারা হত্যার কথা বলেছে আমরা হত্যা মামলা নিবো। তদন্তের মাধ্যমে এর সঠিক খুনিদের আইনের আওতায় আনা হবে। বিগত সময়ে যে হত্যাকান্ড সংগঠিত হয়েছে সেই মামলা সদ্য কারামুক্ত আসামিদের বিরুদ্ধে একাধিক গোয়েন্দা টিম কাজ করছে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com