1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার সরাবতী ইউনিয়ন ভূমি অফিসে গ্রাহকদের হয়রানীর অভিযোগ - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৪:৪০ অপরাহ্ন
Title :
তিতাসে জাগ্রত একতা সংঘের সভাপতি শফিকুল ইসলামকে সংবর্ধনা দেবীদ্বারে আগ্নেয়াস্ত্রসহ ডাকাত দলের ১ সদস্য গ্রেফতার চান্দিনায় শ্রমিক অবরোধ : পারিশ্রমিকের দাবিতে মহাসড়ক স্তব্ধ কুমিল্লায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ৫২ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারি গ্রেফতার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে শ্রমিক আন্দোলনে যানজট চৌদ্দগ্রামে গাঁজা-ইয়াবা উদ্ধার, কথিত সাংবাদিকসহ আটক ১৩ চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় কাভার্ডভ্যান চালক নিহত ঈদে পরিবার ছেড়ে রাস্তায় : হাইওয়ে পুলিশের অক্লান্ত সেবায় সুরক্ষিত যাত্রা “কলেজের করিডোরে হৃদয়ের হাসি : বৃষ্টি ও সাহিত্যের মিলন” পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই চক্রের মূল হোতা গ্রেফতার

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার সরাবতী ইউনিয়ন ভূমি অফিসে গ্রাহকদের হয়রানীর অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • Update Time : রবিবার, ২৪ মার্চ, ২০২৪
  • ৩০২৫ Time View

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার সরাবতী ইউনিয়ন ভূমি অফিসে বাদ খারিজ ও দাখিলা কাটাসহ নামজারী করতে আসা ভূমির মালিকদের কাছ থেকে সরকার নির্ধারিত ফি’র চেয়ে অতিরিক্ত টাকা আদায় এবং প্রতিবাদ করলে সেবা থেকে বঞ্চিত করার অভিযোগ উঠেছে। ক্ষতিগ্রস্থ ভূমির মালিকদের সুত্রে জানা যায়, অনলাইনে নির্ধারিত ফি দিয়ে আবেদনের নিয়ম থাকলেও ভূমি অফিসে আসার পর দালাল চক্রের বেষ্টনিতে পরে ভূমির মালিকরা। দালাল চক্রের সদস্যরা নামজারী বা খারিজ দ্রুত করিয়ে দেবার লক্ষ্যে মোটা অঙ্কের টাকা দাবী করে এবং অনিহা প্রকাশ করলে গ্রাহকদের হয়রানী শুরু হয়।

সরাবতী ইউনিয়নের ভূমি মালিক আঃ হাশেম, মনু মিয়া, সহিদুল্লাহ, হাফিজ মেম্বার, কবির হোসেন জানান, তারা যখন নামজারী বা বাদ খারিজ করতে আসেন, তখন সহকারী ভূমি কর্মকর্তা অতিরিক্ত টাকা দাবী করেন এবং রশিদ ছাড়া টাকা নেন। তারা আরো বলেন, এই সহকারী ভূমি কর্মকর্তার একটি সিন্ডিকেট রয়েছে, যারা গ্রাহকদের কাছ থেকে নামজারী বা বাদ খারিজ করতে আসলে সর্বনিম্ন ১০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ২০ হাজার টাকা এবং দাখিলা কাটতে আসলে ৫০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা দাবী করেন।

সরাবতী ইউনিয়ন সহকারী ভূমি কর্মকর্তা খোরশেদ আলম অভিযোগের বিষয়ে বলেন, অনলাইনের যুগে তার হাতে কোন কিছু নেই এবং সরকারী ফি’র অতিরিক্ত কোন টাকা তিনি নেননি। তবে তিনি স্বীকার করেন, কেউ খুশি হয়ে বখশিশ দিলে তার সহকারীরা তা গ্রহণ করেন।

এই ঘটনায় ভূমি মালিকদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে এবং তারা দ্রুত এই হয়রানীর অবসান চান। সরকারী নির্ধারিত ফি’র বাইরে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের এই প্রক্রিয়া বন্ধ এবং সঠিক তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের শাস্তির দাবী জোরালো হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com