1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
কুমিল্লা বিআরটিএ কার্যালয়ে দালাল চক্রের দৌরাত্ম্যে জনদুর্ভোগ চরমে - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ১১:০৬ পূর্বাহ্ন
Title :
“কুমিল্লার হোমনায় ব্যবসায়ী হত্যা : আদালতের ঐতিহাসিক রায়ে ৭ জনের মৃত্যুদ- ও ৭ জনের যাবজ্জীবন” চৌদ্দগ্রামে বিদেশ প্রত্যাগত অভিবাসীদের পুনঃএকত্রীকরণে সেমিনার চৌদ্দগ্রামে দুর্নীতি বিরোধী বিতর্ক ও রচনা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ঈদের আগে জাল টাকার ছড়াছড়ি : ক্রেতা-বিক্রেতারা আতঙ্কে চৌদ্দগ্রামে বজ্রপাতে মাটিকাটার শ্রমিক নিহত হারানো পরিবারের সন্ধানে মোহাম্মদ ইয়াসিন: এক দশক পরেও মা’কে খুঁজছেন চৌদ্দগ্রামে ৬০ কেজি গাঁজা সহ কাভার্ডভ্যান জব্দ দেবীদ্বারে কিশোরী ধর্ষণ মামলার আসামী গ্রেপ্তার দেবীদ্বার উপজেলা প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত “আনারসের জোয়ারে উত্তাল কুমিল্লা সদর দক্ষিণ : ইঞ্জিনিয়ার রিপনের বিজয়ের প্রত্যয়ে মুখরিত জনতা”

কুমিল্লা বিআরটিএ কার্যালয়ে দালাল চক্রের দৌরাত্ম্যে জনদুর্ভোগ চরমে

মোহাম্মদ কাজী নুর আলম :
  • Update Time : রবিবার, ২৮ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৩০৩৬ Time View

কুমিল্লা নগরীর বিআরটিএ কার্যালয়ে দালাল চক্রের দৌরাত্ম্যের কারণে সাধারণ জনগণ চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। গাড়ির ফিটনেস, ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং নতুন গাড়ির লাইসেন্স প্রাপ্তিতে দালালদের ওপর নির্ভরতা এখন এক অবধারিত বাস্তবতা। দালাল ছাড়া সরাসরি কাজ করতে গেলে ধীরগতি এবং নানা ভোগান্তির মুখে পড়তে হয়। এই চক্রের সাথে জড়িত কয়েকজন কর্মকর্তার যোগসাজশে প্রতিদিন লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

হাবিব মিয়া নামে এক ব্যক্তির অভিজ্ঞতা এই দুর্ভোগের এক জ্বলন্ত উদাহরণ। তিনি আড়াই মাস আগে ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য বিআরটিএ কুমিল্লা অফিসে টাকা জমা দিয়েছিলেন। তার স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্সটি ডেলিভারি দেওয়ার কথা ছিল গত ২১ জানুয়ারি। কিন্তু অফিসে এসে তিনি জানতে পারেন, তার ডেলিভারির সময় আরও দুই মাস বাড়িয়েছেন কর্মকর্তারা। দালালের মাধ্যমে টাকা দিয়ে কাজ না করানোর কারণে তার হয়রানি বেড়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, কুমিল্লা বিআরটিএ কার্যালয়ে প্রতিদিন ১০-১২ ধরনের সেবা নিতে আসেন হাজারের অধিক সেবাগ্রহীতা। তারা প্রতিনিয়ত হয়রানির শিকার হচ্ছেন। কেউ রেজিস্ট্রেশন, কেউ মালিকানা পরিবর্তন, আবার কেউবা গাড়ির ফিটনেস নিয়ে দিনের পর দিন ঘুরাঘুরি করছেন। সময়মতো কাজ না হওয়া এবং রাস্তায় বের হলে পুলিশি হয়রানিতে পড়ার অভিযোগ করেছেন অনেকে।

এই দালাল চক্রের নিয়ন্ত্রণে থাকা একজন সিল মিক্যানিকের নাম উঠে এসেছে, যিনি তার খালাতো ভাই এবং অন্যান্য দালালদের সাথে মিলে এই অন্যায় কাজে জড়িত। তবে তিনি এবং তার ভাই এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। একজন অসুস্থ প্রাক্তন কর্মকর্তার নামও এই চক্রের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ উঠেছে, যদিও তিনি নিজেকে এসব থেকে দূরে থাকার দাবি করেছেন।

বিআরটিএ কর্মকর্তারা দালালের উৎপাত বাড়ার জন্য সেবাগ্রহীতাদের অসচেতনতাকে দায়ী করছেন। কুমিল্লা শাখার সহকারী পরিচালক বলেন, গ্রাহকরা যদি নিজেরা সেবা নিতে আসেন, তাহলে ভোগান্তিতে পড়বেন না। তিনি আরও জানান, মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে দালালদেরদের চেষ্টা করছি। এটা অব্যাহত থাকবে।

এই প্রতিবেদনে উঠে আসা বিষয়গুলো নিয়ে সমাজের সচেতন মহল উদ্বিগ্ন এবং দাবি করছেন যে, দালাল চক্রের এই দৌরাত্ম্য বন্ধ করতে হলে বিআরটিএ কার্যালয়ের কার্যক্রমে স্বচ্ছতা আনা এবং দালালমুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করা জরুরি। সেবাগ্রহীতাদের অসচেতনতা এবং দালালদের উৎপাত প্রতিরোধে আরও কঠোর নীতি প্রণয়ন এবং কার্যকর বাস্তবায়নের ওপর জোর দেওয়া হচ্ছে।

সরকারি কার্যালয়ে দালাল চক্রের এই প্রভাব কেবল কুমিল্লা বিআরটিএ কার্যালয়েই নয়, দেশের অন্যান্য অঞ্চলেও একই রকম অভিযোগ উঠে আসছে। এই অবস্থা পরিবর্তনে সরকার এবং সংশ্লিষ্ট দপ্তরের আরও সক্রিয় ভূমিকা প্রত্যাশা করছেন জনগণ। সমাজের সব স্তরের মানুষের মধ্যে এই বিষয়ে সচেতনতা বাড়ানো এবং সরকারি সেবার প্রতি আস্থা ফিরিয়ে আনার জন্য সমন্বিত প্রচেষ্টা জরুরি।

সমাজের এই অবস্থা পরিবর্তনে সকলের সহযোগিতা এবং সচেতন পদক্ষেপ অপরিহার্য। দালাল চক্রের বিরুদ্ধে সক্রিয় অবস্থান নিয়ে সরকারি সেবা প্রদানের প্রক্রিয়াকে আরও সহজ, স্বচ্ছ এবং দ্রুতগতির করা সম্ভব। এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে আমরা সমাজের সকল স্তরের মানুষের কাছে এই বিষয়ে সচেতনতা বাড়ানো এবং সমস্যার সমাধানে সক্রিয় ভূমিকা রাখার আহ্বান জানাচ্ছি।

কুমিল্লা বিআরটিএ কার্যালয় তিনজনের নিয়ন্ত্রণে : 

কুমিল্লা বিআরটিএ কার্যালয়ের তিন অফিস কর্মকর্তা ও দালাল চক্রের প্রভাব নিয়ে জনমনে বিরাজ করছে উদ্বেগ ও ক্ষোভ। এই তিন কর্মকর্তা হলেন সিল মিক্যানিক সালাউদ্দিন টিপু, তার খালাতো ভাই মামুন এবং প্রাক্তন কর্মকর্তা মুজিবুর রহমান। অভিযোগ উঠেছে, এই তিনজনের যোগসাজশে দালাল চক্র প্রতিদিন লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।

সালাউদ্দিন টিপু : বিআরটিএ অফিসের একজন সিল মিক্যানিক। তার নাম দালাল চক্রের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে উঠেছে। তিনি নিজের প্রতি উঠে আসা অভিযোগগুলো অস্বীকার করে বলেছেন যে, দালালদের বিরুদ্ধে তার কার্যক্রমের কারণে তার পেছনে একদল দালাল উঠেপড়ে লেগেছে।

মামুন : হলেন সালাউদ্দিন টিপুর খালাতো ভাই। তিনি দাবি করেছেন যে, তিনি মাঝেমাঝে প্রয়োজনে টিপু ভাইয়ের কাছে আসেন এবং পরিচিত কেউ আবেদন করলে সহযোগিতা করেন।

মুজিবুর রহমান : একজন প্রাক্তন কর্মকর্তা, যিনি বর্তমানে স্ট্রোক করে অসুস্থ। তার নামও দালাল চক্রের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ উঠেছে, যদিও তিনি নিজেকে এসব থেকে দূরে থাকার দাবি করেছেন। তিনি দাবি করেন ওনার ভাইয়েরা সাংবাদিক।

এই তিন কর্মকর্তার কার্যক্রম এবং দালাল চক্রের সাথে তাদের সম্পর্কের বিষয়ে গভীর তদন্ত এবং স্বচ্ছ ব্যবস্থাপনা জরুরি। সরকারি সেবা প্রদানে দালাল চক্রের এই প্রভাব বন্ধ করতে হলে কঠোর নীতি প্রণয়ন এবং কার্যকর বাস্তবায়ন অপরিহার্য। জনগণের মধ্যে সচেতনতা বাড়ানো এবং সরকারি সেবার প্রতি আস্থা ফিরিয়ে আনার জন্য সমন্বিত প্রচেষ্টা জরুরি।

 

বিআরটিএ লাইসেন্স নবায়নের জন্য নির্ধারিত ফি এবং প্রক্রিয়া নিম্নরূপ :

 

অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন:

মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিনের মধ্যে হলে নবায়ন ফি ৪১৫২/- টাকা।

মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিন পরে প্রতি বছর ৫১৮/- টাকা জরিমানাসহ।

নির্ধারিত ফি জমা দিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ বিআরটিএর নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে।

আবেদনপত্র ও সংযুক্ত কাগজপত্র সঠিক পাওয়া গেলে একইদিনে গ্রাহকের বায়োমেট্রিক্স গ্রহণ করা হয়।

স্মার্ট কার্ড প্রিন্টিং সম্পন্ন হলে গ্রাহককে এসএমএস এর মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হয়1।

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন:

মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিনের মধ্যে হলে নবায়ন ফি ২৪২৭/- টাকা।

মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিন পরে প্রতি বছর ৫১৮/- টাকা জরিমানাসহ।

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সধারীদেরকে পুনরায় একটি ব্যবহারিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে।

পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর নির্ধারিত ফি জমা দিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ বিআরটিএর নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে।

গ্রাহকের বায়োমেট্রিক্স গ্রহণের জন্য গ্রাহককে নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে উপস্থিত হতে হয়।

স্মার্ট কার্ড প্রিন্টিং-এর সমস্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে গ্রাহককে এসএমএস এর মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হয়1।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:

নির্ধারিত ফরমে আবেদন।

রেজিষ্টার্ড ডাক্তার কর্তৃক মেডিকেল সার্টিফিকেট।

ন্যাশনাল আইডি কার্ড এর সত্যায়িত ফটোকপি।

শিক্ষাগত যোগ্যাতার সনদ।

নির্ধারিত ফী জমাদানের রশিদ।

সদ্য তোলা ১ কপি পাসপোর্ট ও ১কপি স্ট্যাম্প সাইজ ছবি।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com