1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
কৃষকরা ন্যায্য দাম না পেলেও ভোক্তারা বেশি দাম দিয়েই কিনছেন সবজি - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৩:৫৬ অপরাহ্ন
Title :
তিতাসে জাগ্রত একতা সংঘের সভাপতি শফিকুল ইসলামকে সংবর্ধনা দেবীদ্বারে আগ্নেয়াস্ত্রসহ ডাকাত দলের ১ সদস্য গ্রেফতার চান্দিনায় শ্রমিক অবরোধ : পারিশ্রমিকের দাবিতে মহাসড়ক স্তব্ধ কুমিল্লায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ৫২ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারি গ্রেফতার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে শ্রমিক আন্দোলনে যানজট চৌদ্দগ্রামে গাঁজা-ইয়াবা উদ্ধার, কথিত সাংবাদিকসহ আটক ১৩ চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় কাভার্ডভ্যান চালক নিহত ঈদে পরিবার ছেড়ে রাস্তায় : হাইওয়ে পুলিশের অক্লান্ত সেবায় সুরক্ষিত যাত্রা “কলেজের করিডোরে হৃদয়ের হাসি : বৃষ্টি ও সাহিত্যের মিলন” পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই চক্রের মূল হোতা গ্রেফতার

কৃষকরা ন্যায্য দাম না পেলেও ভোক্তারা বেশি দাম দিয়েই কিনছেন সবজি

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী :
  • Update Time : বুধবার, ১৪ অক্টোবর, ২০২০
  • ৩৮৪৭ Time View

বেগুনের ফলন দেখে কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার ছায়কোট গ্রামের কৃষক আবদি মিয়ার মুখে ফুটেছিল তৃপ্তির হাসি। কিন্তু নিমসার হাটে সেই হাসি মিলিয়ে গেল তাঁর। সপ্তাহ ঘুরেই বেগুনের দাম মণপ্রতি কমে গেছে ১০০ টাকা। গত হাটে ভালো মানের প্রতিমণ বেগুন পাইকারদের কাছে বিক্রি করেছিলেন এক হাজার ৫০০ টাকায়। গতকাল বুধবার তার দাম নেমে হয় এক হাজার ৪০০ টাকা। ৪০ টাকা কেজি দরে বেগুন বিক্রি করতে কষ্ট হয় ফুল মিয়ার। অথচ তাঁর বেগুনই কুমিল্লার শহরে বিক্রি হয় ৯০ থেকে ১০০ টাকা কেজি।

কুমিল্লার চান্দিনা, বুড়িচং এই দুই উপজেলায় সবচেয়ে বেশি সবজির ফলন হয়। কৃষকরা বেগুন, কাঁকরোল, শসা, ঝিঙা, লাউ, পুঁইশাক, মরিচ, ডাঁটাশাক, পেঁপে ও কচুর লতি নিয়ে আসেন কুমিল্লার সবচেয়ে বড় বাজার নিমসার পাইকারি হাটে। সেখান থেকে প্রতিদিন অর্ধশত ট্রাক শাকসবজি নিয়ে রাজধানীসহ নারায়ণগঞ্জ, চট্টগ্রাম, সিলেট এবং অন্যান্য জেলায় যায়। কৃষি কর্মকর্তারা জানান, ওই সব জেলার শাকসবজির চাহিদার প্রায় ৪০ ভাগই পূরণ করেন কুমিল্লার কৃষকরা।

সরেজমিনে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের পাশে অবস্থিত নিমসার সবজির হাটে গিয়ে দেখা যায়, পাইকারি ক্রেতারা সবজি কিনে ঝুড়িতে সাজাচ্ছেন। ঝুড়ি বোঝাই সবজি তোলা হচ্ছে ট্রাক অথবা পিকআপ ভ্যানে। হাটের কৃষকরা জানান, বর্তমান বাজারে প্রতিমণ বেগুন ১৫ শত টাকা, কাঁকরোল ৯০০ থেকে ১ হাজার টাকা, শসা ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা, পুঁইশাক ৫০০ টাকা, মরিচ ১৮ শত থেকে ২ হাজার টাকা, পেঁপে ৫০০ টাকা, ঝিঙা ১ হাজার টাকা, জলপাই ৯০০ টাকা এবং লাউ প্রতি পিছ ৫০ থেকে ৬০ টাকা পাইকারি দরে বিক্রি হচ্ছে। চান্দিনার শ্রীমন্তপুর গ্রামের সবজি চাষি শাহাজাহান মিয়া বলেন, দালালরা কম টাকা দিয়ে প্রায় জোর করেই সবজি নিয়ে যায়। তারা কমিশন নিয়ে পাইকারদের কাছে বিক্রি করে দেয় সেই সবজি। চাষিদের কাছ থেকে মরিচ কিনে বাজারেই পাইকারি বিক্রি করেন জাকির হোসেন। তিনি জানান, কৃষকের কাছ থেকে ১২০ টাকা কেজিতে মরিচ কিনে তিনি পাইকারদের কাছে ১৯০ টাকায় বিক্রি করেন। কুমিল্লার নিমসার হাট থেকে সবজি সংগ্রহ করে কারওয়ান বাজারের সরবরাহ করেন রমজান আলী। তিনি বলেন, আমরা হাট থেকে কিনে আড়তে প্রতিমণ শসা ১২শ টাকা, পুঁইশাক ৭০০ টাকা, পেঁপে ৯০০ টাকা, ঝিঙা ১২শ টাকায় সরবরাহ করি।

কুমিল্লা কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তরের মাঠ সুপারভাইজার নজরুল ইসলাম বলেন, কৃষকরা ন্যায্য দাম না পেলেও ভোক্তারা বেশি দাম দিয়েই সবজি কিনছেন। বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকার কার্যকর উদ্যোগ নিলে এ অবস্থা থেকে বের হয়ে আসা সম্ভব। অথচ সবজি উৎপাদনে রীতিমতো বিপ্লব ঘটালেও এর দাম পাচ্ছেন না চাষিরা। আধুনিক পদ্ধতিতে চাষ করায় এই এলাকায় সবজির ফলন ভালো হচ্ছে। কিন্তু রাজধানী বা কুমিল্লা শহরে খুচরা বাজারে যে দামে সবজি বিক্রি হচ্ছে, এর তিন ভাগের এক ভাগ দামে পাইকারি বাজারে তা বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন স্থানীয় চাষিরা। সবজি বিক্রি করে কোনো রকমে উৎপাদন খরচ ওঠে আসছে বলে জানিয়েছেন নিমসার বাজারে আসা কুমিল্লা এলাকার বেশ কয়েকজন সবজি চাষি। কুমিল্লা শহরের খুচরা বাজারে সবজির দাম চড়া হলেও নিমসার হাটে চাষিরা সবজি বিক্রি করছেন পানির দরে। মৌসুমি সবজির আমদানি বাড়লে পাইকারি ফড়িয়া ব্যবসায়ীরা সুযোগ বুঝে দাম কমিয়ে দেন। ফলে কৃষকরা কম দামে সবজি বিক্রি করতে বাধ্য হন। এতে চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হন কৃষক।

গতকাল বুধবার নিমসার সবজির পাইকারি হাটে গিয়ে দেখা যায়, প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা দরে। বড় প্রতিটি লাউয়ের পাইকারি দাম ৫০ থেতে ৬০ টাকা। অন্যদিকে শহরের খুচরা বাজারগুলোতে ১৯০ থেকে ২০০ টাকা কেজি দরে কাঁচা মরিচ এবং ৮০ থেকে ৯০ টাকায় একেকটি লাউ বিক্রি হচ্ছে। চাষিদের অভিযোগ, দিন-রাত হাড়ভাঙা পরিশ্রম করে সবজি ফলিয়ে কোনো রকমে খরচের টাকা তুলতে পারছেন তাঁরা। মধ্যস্বত্বভোগী এক শ্রেণীর ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট করে ইচ্ছেমতো দামে সবজি বিক্রি করে ব্যাপকভাবে লাভবান হচ্ছেন। সবজি চাষি বিল্লাল জানান, তিনি এ বছর ২৪ শতক জমিতে লাউয়ের আবাদ করেছেন। প্রথম দিকে প্রতিটি লাউ বিক্রি করেছেন ৩০ থেকে ৪০ টাকা করে। এখন বিক্রি করছেন ৫০ থেকে ৬০ টাকা দরে। এ দামে লাউ বিক্রি করে কোনো রকমে আবাদের খরচ উঠেছে বলে জানান তিনি।

যাত্রাবাড়ি সবজি ব্যবসায়ী আনোয়ার বলেন, চাষির কাছ থেকে যে দামে সবজি কেনা হয়, তার উপর খাজনা, লেবার খরচ, আড়তদারি ও পরিবহন খরচ দিয়ে ঢাকায় মাল পৌঁছাতে সবজির মূল্য দ্বিগুণেরও বেশি পড়ে যায়। এখানে একটি লাউ ৬০ টাকায় কিনলে, ঢাকার বাজারে আবার আড়তদারি দিয়ে তা ৮০-৯০ টাকায় বিক্রি না করলে লাভ হয় না।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com