1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
গলাচিপায় সরকারি ঘর পাওয়ার আকুতি অসহায় ফিরোজার - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ১০:৫৫ পূর্বাহ্ন
Title :
“কুমিল্লার হোমনায় ব্যবসায়ী হত্যা : আদালতের ঐতিহাসিক রায়ে ৭ জনের মৃত্যুদ- ও ৭ জনের যাবজ্জীবন” চৌদ্দগ্রামে বিদেশ প্রত্যাগত অভিবাসীদের পুনঃএকত্রীকরণে সেমিনার চৌদ্দগ্রামে দুর্নীতি বিরোধী বিতর্ক ও রচনা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ঈদের আগে জাল টাকার ছড়াছড়ি : ক্রেতা-বিক্রেতারা আতঙ্কে চৌদ্দগ্রামে বজ্রপাতে মাটিকাটার শ্রমিক নিহত হারানো পরিবারের সন্ধানে মোহাম্মদ ইয়াসিন: এক দশক পরেও মা’কে খুঁজছেন চৌদ্দগ্রামে ৬০ কেজি গাঁজা সহ কাভার্ডভ্যান জব্দ দেবীদ্বারে কিশোরী ধর্ষণ মামলার আসামী গ্রেপ্তার দেবীদ্বার উপজেলা প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত “আনারসের জোয়ারে উত্তাল কুমিল্লা সদর দক্ষিণ : ইঞ্জিনিয়ার রিপনের বিজয়ের প্রত্যয়ে মুখরিত জনতা”

গলাচিপায় সরকারি ঘর পাওয়ার আকুতি অসহায় ফিরোজার

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২২
  • ৩৩২০ Time View

পটুয়াখালীর গলাচিপায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি ঘর পাওয়ার আকুতি জানিয়েছে অসহায় ফিরোজা বেগম। ফিরোজা বেগম (৬১) হচ্ছেন উপজেলার গলাচিপা সদর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের জবি প্যাদা বাড়ির হানিফ প্যাদার স্ত্রী। বর্তমানে পরিবারটি অসহায় জীবনযাপন করছে। স্বামীর ঝুপড়ি ঘরে থেকে চলছে তাদের বসবাস। তার পরিবারের সদস্য সংখ্যা ৫ জন। ফিরোজা বেগমের স্বামী একজন দিনমজুর। মানুষের সাথে যখন যে কাজ পান তাই করে সংসার চালান তিনি। ফিরোজা বেগমের শ^শুরের দেয়া ২ শতক জমির উপর একটি ঝুপড়ি ঘরে বসবাস করছে অসহায় দরিদ্র পরিবারটি। ফিরোজা বেগম জানান, আমার স্বামী একজন দিন মজুর। মানুষের সাথে কাজ করে যে আয় করেন তাতে আমাদের সংসার চলে না। আমাদের ঝুপড়ি ঘরটিতে বৃষ্টির সময় পানিতে তলিয়ে যায়। ঘর উঠানোর সামর্থ্য আমাদের নাই। নুন আনতে পানতা ফুরায় আমাদের। সরকারি একটি ঘর পেলে আমরা বৃষ্টির হাত থেকে রক্ষা পেয়ে সুখে থাকতে পারতাম। জানি না সরকারি ঘর আমাদের কপালে আছে কিনা। ফিরোজা বেগমের স্বামী হানিফ প্যাদা জানান, আমার জন্মের পরেই দারিদ্রতা আমাদের নিত্য সঙ্গী। মানুষের সাথে কাজ করে আর কি আয় করা যায়। আমার দুই শতাংশ জায়গা থাকলেও টাকার অভাবে তাতে ঘর তোলা হয় নি। তাই বাধ্য হয়ে পুরনো ঝুপড়ি ঘরেই থাকি। শীতে যেমন কষ্ট করি, বৃষ্টি এলেও কষ্ট করতে হয়। তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার একটি ঘর পেলে বাকি জীবনটা সুখে কাটাতে পারতাম। আমাদেরকে সরকারীভাবে একটি ঘর দিলে আমরা সরকারের কাছে কৃতজ্ঞতা জানাতাম। এ বিষয়ে ইউপি সদস্য মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, আমার ওয়ার্ডে ওরা খুব অসহায় পরিবার। বাপ-দাদার দুই শতক জমি আছে। টাকা না থাকায় সেখানে কোন ঘর তুলতে পারে নাই। তাদের একটি ঘর খুব প্রয়োজন। গলাচিপা সদর ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসেন টুটু বলেন, ফিরোজা বেগমের পরিবার একটি অসহায়। তার স্বামী অন্য মানুষের সাথে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছে। সরকারীভাবে ফিরোজা বেগমের একটি ঘর খুব দরকার।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com