1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
ডাণ্ডাবেড়ি পায়ে বিএনপি নেতার মায়ের জানাজায়, সমালোচনার ঝড় - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০১:০৬ পূর্বাহ্ন
Title :
দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের পরবর্তী ৪ মাসে দেবীদ্বারে প্রায় শতাধিক হামলা-মারধরের ঘটনা ঘটেছে ময়নামতি ক্রসিংয়ে ৮ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক কুমিল্লায় নিহত আবু মিয়ার জন্য এলাকাবাসীর মানববন্ধন : দ্রুত বিচারের দাবি চৌদ্দগ্রামে পূর্ব বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী ও প্রবাসী সহ আহত ৩ “কুমিল্লা নগরীতে চাঁদাবাজির ঘটনায় ক্ষুব্ধ সিটি মেয়র, অভিযুক্ত গ্রেপ্তার” ঘূর্ণিঝড় রিমাল : বঙ্গোপসাগরের তাণ্ডবে বিপদসংকেত জারি দেবীদ্বারে উনঝুটি আদর্শ পাঠাগারের উদ্যোগে মা-বাবার প্রতি দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পর্কে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত “কুমিল্লার ক্রাইম ক্যাপিটল : অপরাধের আড়ালে নগরীর ৬, ১৬ ও ১৭ নং ওয়ার্ড নীরব সাক্ষী” কুমিল্লার তিন ওয়ার্ডে কেন এতো লাশ? কুমিল্লায় ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৫ জন, পলাতক ড্রাইভারকে গ্রেফতার করেছে হাইওয়ে পুলিশ

ডাণ্ডাবেড়ি পায়ে বিএনপি নেতার মায়ের জানাজায়, সমালোচনার ঝড়

অনলাইন ডেস্ক :
  • Update Time : বুধবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৩১৭৬ Time View

মায়ের মৃত্যুতে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার বোয়ালী ইউনিয়ন বিএনপি’র সভাপতি আলী আজম ৩ ঘণ্টার জন্য প্যারোলে মুক্তি পেয়েছিলেন। হাতকড়া ও ডাণ্ডাবেড়ি পরানো অবস্থায় তাকে হাজির করা হয় মায়ের জানাজায়। এই অবস্থায়ই মায়ের জানাজা পড়ান তিনি। ডাণ্ডাবেড়ি ও হাতকড়া পরা অবস্থায় জানাজা পড়ানোর এই ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এরপর থেকে চলছে নানা সমালোচনা। ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন আইনজীবী ও মানবাধিকার কর্মীরা। এই ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় তারা বলছেন, একটি গায়েবি মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া আসামির সঙ্গে এমন আচরণ মানবতার চরম লঙ্ঘন। বিচারাধীন মামলায় এমন একজন আসামিকে কোনোভাবেই ডাণ্ডাবেড়ি পরানোর সুযোগ নেই। এটি বেআইনি ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এ বিষয়ে উচ্চ আদালতে একটি আদেশ বহাল থাকা সত্ত্বেও তারা এটা করেছেন।

 

এর আগে কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রা ত্রিমোড় এলাকায় গত ২৯শে নভেম্বর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে হামলার অভিযোগে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে করা মামলায় ২রা ডিসেম্বর আলী আজমকে গ্রেপ্তার করা হয়। ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়ে মায়ের জানাজায় নেয়ার বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী জেড আই খান পান্না মানবজমিনকে বলেন, তিনি কোন দলের সেটা আমাদের দেখার বিষয় না। কোনো বন্দিকে এ অবস্থায় তারা আনতে পারেন না।
তাও আবার তার মায়ের জানাজার মতো একটি স্পর্শকাতর সময়ে। এ বিষয়ে উচ্চ আদালতের একটি আদেশ বহাল রয়েছে। সেটা তারা অমান্য করেছে। এটা কোনো সভ্য এবং ভদ্রোচিত আচরণ হতে পারে না। একজন অভিনেত্রীর বেলায় যদি এত এত পুলিশ দিতে পারেন তাহলে আলী আজমের জন্য তারা ২০০ জন বাড়তি পুলিশও নিশ্চয়ই দিতে পারতেন। বাংলাদেশের আমলারা তাদের কলোনিয়াল ভূমিকা থেকে এখনো বের হতে পারেন নি। এই আইনজীবী বলেন, তিনি তো কোনো খুনের মামলার আসামি নন। একদল জঙ্গিকে যদি ডাণ্ডাবেড়ি ছাড়া আদালতে আনতে পারেন তার বেলায় কেন এমন অমানবিক আচরণ করা হলো- এটাই এখন প্রশ্ন? এটি সম্পূর্ণ বেআইনি। যারা তাকে ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়েছেন তাদের প্রত্যেকের জবাবদিহিতার আওতায় আনা উচিত। মানবাধিকার কর্মী মো. নূর খান লিটন বলেন, প্রথমত এটি একটি অমানবিক ঘটনা। দ্বিতীয়ত, সংবিধান বা আইনের আলোকে এটি অচল। এই কাজটি যারা করেছেন তাদেরকে আইনের আওতায় আনা উচিত।পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) মো. নূরুল আনোয়ার বলেন, আসামিকে ডাণ্ডাবেড়ি পরানোর বিষয়ে আইনে একটি বিষয় বলা আছে অর্থাৎ নির্দিষ্ট করা আছে। এরপরও যদি ভয়ঙ্কর কোনো আসামির ক্ষেত্রে যাকে ডাণ্ডাবেড়ি না পরালেই নয় সেটা ভিন্ন বিষয়। তবে সম্প্রতি যে ঘটনাটি ঘটেছে এটি অবশ্যই অমানবিক। তাকে ডাণ্ডাবেড়ি না পরিয়ে বাড়তি পুলিশ ফোর্স দেয়া যেত। তখন যদি তিনি ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যেতেন বা এ ধরনের কোনো উদ্যোগ নিতেন সেক্ষেত্রে বরং আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও জেল কর্তৃপক্ষ বাড়তি প্রশংসা কুড়াতে পারতেন। বিষয়টি নিয়ে এত সমালোচনা হতো না। তিনি তো ভয়ঙ্কর কোনো মামলার আসামি নন। মায়ের জানাজার সময় তার সঙ্গে মানবিক আচরণ না করাটা খারাপ দৃষ্টান্ত উপস্থাপন করেছেন। এক্ষেত্রে ভবিষ্যতে এ ধরনের বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্টদের আরও বেশি সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন পুলিশের সাবেক এই কর্মকর্তা। এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই ছবি প্রচারের পর ব্যাপক সমালোচনা করছেন সাধারণ মানুষ। অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে এই অমানবিক ও অপেশাদার আচরণের।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com