1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
দেশে ছড়িয়ে পরতে পারে কোভিডের নতুন ধরন - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১২:৪৭ পূর্বাহ্ন
Title :
দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের পরবর্তী ৪ মাসে দেবীদ্বারে প্রায় শতাধিক হামলা-মারধরের ঘটনা ঘটেছে ময়নামতি ক্রসিংয়ে ৮ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক কুমিল্লায় নিহত আবু মিয়ার জন্য এলাকাবাসীর মানববন্ধন : দ্রুত বিচারের দাবি চৌদ্দগ্রামে পূর্ব বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী ও প্রবাসী সহ আহত ৩ “কুমিল্লা নগরীতে চাঁদাবাজির ঘটনায় ক্ষুব্ধ সিটি মেয়র, অভিযুক্ত গ্রেপ্তার” ঘূর্ণিঝড় রিমাল : বঙ্গোপসাগরের তাণ্ডবে বিপদসংকেত জারি দেবীদ্বারে উনঝুটি আদর্শ পাঠাগারের উদ্যোগে মা-বাবার প্রতি দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পর্কে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত “কুমিল্লার ক্রাইম ক্যাপিটল : অপরাধের আড়ালে নগরীর ৬, ১৬ ও ১৭ নং ওয়ার্ড নীরব সাক্ষী” কুমিল্লার তিন ওয়ার্ডে কেন এতো লাশ? কুমিল্লায় ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৫ জন, পলাতক ড্রাইভারকে গ্রেফতার করেছে হাইওয়ে পুলিশ

দেশে ছড়িয়ে পরতে পারে কোভিডের নতুন ধরন

অনলাইন ডেস্ক :
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৩১৩৩ Time View

করোনার শুরু থেকে এখনও পর্যন্ত অনেকগুলো ভ্যারিয়েন্টের খোঁজ পাওয়া গেছে। কিছুদিন আগে নতুন করে খোঁজ পাওয়া গেছে ওমিক্রন বিএফ.৭। এটি ওমিক্রনের বিএ.৫ এর একটি সাব ভ্যারিয়েন্ট। করোনার সংক্রমণের নিম্নমুখী ধারার মধ্যেই নতুন করে শঙ্কা তৈরি করেছে চীনে ছড়িয়ে পরা এই ভাইরাসটির নতুন উপধরন বিএফ-৭। ইতোমধ্যে এই ভ্যারিয়েন্ট পার্শবর্তি দেশ ভারতে ছড়িয়ে পরেছে। তাই ভয় আছে বাংলাদেশেও ছড়িয়ে পরতে পারে ওমিক্রণের নতুন এই ভ্যারিযেন্ট বিএফ-৭।

করোনার ধকল সামাল দিতে ইতোমধ্যে নাকাল হয়ে পরেছে চীন। প্রতিদিন সেখানে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এদিকে পাশের দেশ ভারতেও বাড়ছে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট। এই অবস্থায় বাংলাদেশের স্বাস্থ্য বিভাগের দায়িত্বরত সবাই চিন্তিত। কারণ এর আগে ওমিক্রণ ভ্যারিয়েন্ট ভারতে ছড়ানো পর বাংলাদেশে ছড়িয়ে ছিলো। এমনকি কোভিড শুরুর দিকেও ভারতের পরই এদেশে এসেছিলো করোনা ভাইরাস।

করোনার নতুন এই ভ্যারিয়েন্ট যাতে দেশে আসতে না পারে সেজন্য ইতোমধ্যে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত জাতীয় কমিটি ইতোমধ্যে বৈঠক করে সীমান্তে সতর্কতা বৃদ্ধির সুপারিশ করেছে।

এয়ারপোর্ট, ল্যান্ড পোর্ট ও নৌ-পোর্টে বিদেশ থেকে আসা দেশের নাগরিক বা অন্য যে কোনো নাগরিকদের স্ক্রীনিংয়ের আওতায় আনার কথা বলা হয়েছে। এছাড়া, যাদের সন্দেহ হবে তাদের সঙ্গে সঙ্গে র্যাপিড এন্টিজেন টেস্ট করার কথাও বলা হয়েছে।

ইতোমধ্যে দেশের প্রত্যেকটি আন্তর্জাতিক ল্যান্ড, বিমান ও নৌ পোর্টে স্ক্রীনিং করা হচ্ছে প্রত্যেককে। এর মধ্যে যাদের সন্দেহ হচ্ছে তাদের র্যাপিড এন্টিজেন টেস্ট করা হচ্ছে।হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক কামরুল ইসলাম বেঙ্গলনিউজকে বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে আমাদের কাছে একটি নির্দেশনা এসেছে। সেই অনুযায়ী ইতোমধ্যে সামাজিক দুরুত্ব মানতে যাত্রীদের প্রতি আহ্বান জানানো হচ্ছে। বিদেশ থেকে আগত সবাইকে থার্মাল স্কেনার দিয়ে স্ক্রীনিং করা হচ্ছে। বিশেষ করে চীন থেকে আগত যাত্রীদের বিষয়ে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে। এতে শাহজালালের স্বাস্থ্য বিভাগও সহযোগিতা করছে।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের স্বাস্থ্য বিভাগের সহকারী পরিচালক ডা. শাহরিয়ার সাজ্জাদ সোনালীনিউজকে বলেন, আমাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে প্রত্যেকটি যাত্রীকে স্ক্রীনিং করতে। যাদের সন্দেহ হবে তাদের র্যাপিড টেস্ট করতে। যেসব দেশে বিএফ-৭ ছড়িয়েছে সেই সব দেশের রোগীদের প্রতি খেয়াল রাখা হচ্ছে বেশি। সব যাত্রীকে র্যাপিড টেস্ট করা সম্ভব না তবে আমরা সর্বোচ্চ সংখ্যক সন্দেহ হওয়া যাত্রীদের টেস্ট করছি।
তিনি বলেন, আপাতত কেউ যদি আক্রান্ত হয় তবে ডিএনসিসি হাসপাতাল ও কুয়েত মৈত্রি হাসপাতালে পাঠানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আমরা সেটাই করছি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীর সোনালীনিউজকে বলেন, করোনার এই ভ্যারিয়েন্ট ভারতেও ছড়িয়ে পরেছে। আমরা এখন এখন ধরনের শঙ্কার মধ্যে রয়েছি। যেকোনো সময় আমাদের এখানেও এই ধরনটি পাওয়া যেতে পারে। তাই বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশী ও ভ্রমণ বা কাজের জন্য আসা বিদেশী নাগরিকদের স্ক্রীনিং কঠোর করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা ইতোমধ্যে হাসপাতালগুলোকে প্রস্তুতি নিতে নির্দেশনা দিতে বলেছি। যাতে কোনো ধরনের সমস্যা হলে যাতে সেটা সামাল দেয়া যায়। উপজেলাগুলোর কোয়ারেন্টাইন সেন্টার, জেলা ও বিভাগীয় শহরের সব সরকারি হাসপাতালগুলোকে কোভিড রোগীদের জন্য প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। যেসব শয্যা কোভিডের জন্য নির্ধারিত ছিলো সেগুলোকে সাধারণ রোগীদের জন্য এতদিন ব্যবহার করা হোতো। এই শয্যাগুলো খালি করে কোভিড রোগীদের জন্য প্রস্তুত করতে বলা হয়েছে।

আহমেদুল কবীর বলেন, রাজধানীর ডিএনসিসি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল প্রস্তুত করা হযেছে। এটা ইতোমধ্যে প্রস্তুতই আছে। যদি রোগী বৃদ্দি পায় তবে চিকিৎসক ও নার্স ডেপুটেশনে এখানে আনতে হবে। কোভিডের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পরার শঙ্কা উড়িয়ে দেয়া যায় না। তাই আমাদের এই প্রস্তুতি।

এদিকে রোগতত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের পরিচালক অধ্যাপক ডা. তাহমিনা শিরিন সোনালী নিউজকে বলেন, আমরা সারা দেশের কোভিড রোগীদের স্যাম্পল ঢাকায় এনে জিনোমসিকোয়েন্সিং করছি। আরো করবো। এখণ পর্যন্ত কারো স্যাম্পলেই করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট বিএফ-৭ পাওয়া যায়নি। তবে পাওয়া যাবে না এটা এখনই বলা যাচ্ছে না। ভারতে যেহেতু পাওয়া গেছে, আমাদের দেশেল সীমান্ত এলাকাগুলোতেও পাওয়া যেতে পারে। সেজন্য ভারত ঘুড়ে আসা যাত্রীদের দিকে বেশি নজর দিতে হবে।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. আবু জামিল ফয়সাল সোনালীনিউজকে বলেন, ওমিক্রণ যখন দেশে ছড়িয়ে পরে তখন ভারতেও অনেক রোগী ছিলো। এটা হবেই তা বলা যাবে না। তবে এ ধরনের রোগের ক্ষেত্রে পাশের দেশের মানুষও আক্রান্ত হয়। সেই হিসেবে বলাই যায় যদি ভারতে অনেক বেশি ছড়ায় তাহলে আমাদের দেশেরও ছাড়াতে পারে।

তিনি বলেন, ছাড়নো ঠেকাতে হলে যেসব দেশে এই ধরনটি ছড়িয়েছে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ কমাতে হবে। আর তা না পারলে যারা আসবে তারা যাতে কঠোর নির্দেশনার মধ্যে থাকে সেটা নিশ্চিত করতে হবে। চাইলে কোয়ারেন্টাইন ব্যবস্থাও চালু করতে পারে সরকার।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com