1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
মেট্রো যাত্রায় উচ্ছ্বাস উঠতে না পেরে আক্ষেপ - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১২:৪৩ পূর্বাহ্ন
Title :
দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের পরবর্তী ৪ মাসে দেবীদ্বারে প্রায় শতাধিক হামলা-মারধরের ঘটনা ঘটেছে ময়নামতি ক্রসিংয়ে ৮ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক কুমিল্লায় নিহত আবু মিয়ার জন্য এলাকাবাসীর মানববন্ধন : দ্রুত বিচারের দাবি চৌদ্দগ্রামে পূর্ব বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী ও প্রবাসী সহ আহত ৩ “কুমিল্লা নগরীতে চাঁদাবাজির ঘটনায় ক্ষুব্ধ সিটি মেয়র, অভিযুক্ত গ্রেপ্তার” ঘূর্ণিঝড় রিমাল : বঙ্গোপসাগরের তাণ্ডবে বিপদসংকেত জারি দেবীদ্বারে উনঝুটি আদর্শ পাঠাগারের উদ্যোগে মা-বাবার প্রতি দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পর্কে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত “কুমিল্লার ক্রাইম ক্যাপিটল : অপরাধের আড়ালে নগরীর ৬, ১৬ ও ১৭ নং ওয়ার্ড নীরব সাক্ষী” কুমিল্লার তিন ওয়ার্ডে কেন এতো লাশ? কুমিল্লায় ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৫ জন, পলাতক ড্রাইভারকে গ্রেফতার করেছে হাইওয়ে পুলিশ

মেট্রো যাত্রায় উচ্ছ্বাস উঠতে না পেরে আক্ষেপ

অনলাইন ডেস্ক :
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৩১৩২ Time View

কুয়াশা ঢাকা ভোর। আগারগাঁওয়ে মানুষের দীর্ঘলাইন। অপেক্ষায় স্বপ্নের মেট্রোরেলে ওঠার। ঢাকার বাইরে থেকেও এসেছেন অনেকে। শীত উপেক্ষা করে প্রথম দিনেই মানুষের উপচে পড়া ভিড়। তাদের অধিকাংশই দর্শনার্থী যাত্রী। আগারগাঁও স্টেশন থেকে দীর্ঘলাইন গিয়ে ঠেকে পাসপোর্ট অফিস পর্যন্ত। পরিবার, আত্মীয় কিংবা বন্ধুদের নিয়ে মেট্রোরেলে ভ্রমণ করতে এসেছেন তারা। দীর্ঘলাইন পাড়ি দিয়ে মেট্রোরেলের স্টেশনে ওঠেন যাত্রীরা। দুই তিন ঘণ্টা লাইনে দাঁড়ানোর পরও তাদের মধ্যে উচ্ছ্বাসের কমতি ছিল না।

 

তারা জানান, প্রথম দিনেই মেট্রোরেলে ওঠতে পারাটা সৌভাগ্যের। তাই সেই বহুল প্রতীক্ষিত মাহেন্দ্রক্ষণের অংশ হতে তারা ভোর থেকেই লাইনে দাঁড়িয়েছেন। সকাল সাড়ে ৭টায় সামিউল ইসলাম ও রফিকুল ইসলাম নামের দুই শিক্ষার্থী আগারগাঁও স্টেশনে আসেন। লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন দুই ঘণ্টা। সামিউল বলেন, বিদেশে মেট্রোরেল দেখেছি। এখন বাংলাদেশে দেখছি। এটা আনন্দের বিষয়। প্রথমদিন বলে একটু ভিড় বেশি। তবে আমাদের আনন্দের কমতি নেই। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আলমগীর বলেন, সকাল ৭টা ৪৫ মিনিটে এসেছি। এখনো টিকিট কাটতে পারিনি। বাংলাদেশে এমন একটা মেগা প্রজেক্টের বাস্তবায়ন দেখছি। আমরা খুব এক্সাইটেড। পঞ্চাশোর্ধ্ব ইঞ্জিনিয়ার আমানউল্লাহ ভূঁইয়া বলেন, আশা করিনি আমার মৃত্যুর আগে এমন প্রকল্প দেখে যাবো। এটা হওয়ার পর খুব আনন্দ লাগছে। প্রথম দিন অনেকে ট্রেনে চড়তে পারলেও না চড়ার আক্ষেপ নিয়ে ফিরে গেছেন অনেকে।
সড়কের দীর্ঘলাইন পাড়ি দিয়ে চলন্ত সিঁড়ি দিয়ে স্টেশনে প্রবেশ করেন যাত্রীরা। সেখানে স্বয়ংক্রিয় ও ম্যানুয়াল কাউন্টারে টিকিট কাটতেও দীর্ঘলাইন ছিল। প্রথম দিন সকালেই ছয়টির মধ্যে পাঁচটি টিকিট বিক্রয় মেশিন (ভেন্ডিং মেশিন) বিকল হয়ে যায়। তাই অনেকেই ম্যানুয়াল বুথ থেকে টিকিট ক্রয় করেন। যাত্রীদের অতিরিক্ত চাপ পড়ে এখানেও। ম্যানুয়াল বুথে একজনকে সর্বোচ্চ পাঁচটি করে টিকিট দেয়া হচ্ছিলো। এর মধ্যেই স্টেশনের তৃতীয়তলায় মেট্রোরেলের সাইরেনের শব্দ ভেসে আসে। কাউন্টার থেকে টিকিট কেটে চলন্ত সিঁড়ি ব্যবহার করে প্ল্যাটফরমে যাচ্ছেন যাত্রীরা। অনেকে উত্তরা স্টেশন থেকে মেট্রোরেল ভ্রমণ করে একইভাবে নিচে নামছেন। রেল আসার সঙ্গে সঙ্গেই ভেতরে প্রবেশের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন সবাই। ৬টি কোচবিশিষ্ট রেলের দরজা স্বয়ংক্রিয়ভাবে খুললো। কোচে ওঠতে মাইকে যাত্রীদের ঘোষণা দেয়া হলো। সকলেই কৌতূহল নিয়ে উঠলেন। মেট্রোরেলে ওঠার পর থেকেই যাত্রীদের মধ্যে উল্লাস দেখা যায়। প্রথমবারের মতো মেট্রোরেলে ওঠেছেন এসব যাত্রী। বীর মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষক, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার থেকে শুরু করে দিনমজুর মানুষও প্রথমবারের মতো মেট্রোরেলে ওঠেছেন। অনেকে বৃদ্ধ বাবা-মা কিংবা ছোট সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে এসেছেন। মেট্রোরেলে ওঠার পর থেকেই আনন্দের ছাপ তাদের চোখেমুখে। নয়া মাইলফলকের এই মাহেন্দ্রক্ষণ স্মরণীয় করে রাখতে ছবি তুলছিলেন সকলে। অনেকে ভিডিও ধারণ করছিলেন। এরমধ্যেই মাইকে ঘোষণা দিয়ে বন্ধ হয়ে যায় কোচের স্বয়ংক্রিয় দরজা। উড়াল পথে সাঁই করে ছুটতে শুরু করে মেট্রোরেল। মেট্রোরেলের ভেতর থেকে বাইরের পরিবেশ উপভোগ করেছেন অনেকে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম। বয়স ৭৫ বছর। কখনো কল্পনাও করেননি দেশে মেট্রোরেল হবে। প্রথমবারের মতো মেট্রোরেলে চড়ে খুবই আনন্দিত তিনি। আবুল কাশেম বলেন, মিশরে মাটির নিচে ট্রেন দেখেছি কতো সুন্দর। আমাদের দেশে এত সুন্দর ট্রেন হবে কল্পনাতেও ছিল না। আমি দেখে গেলাম। এটা এখন ঐতিহাসিক বিষয় হয়ে গেছে। স্টেশনগুলো এত সুন্দর। কিন্তু বিদেশে এত সুন্দর স্টেশন দেখি নাই। মেট্রোরেলের সঙ্গে যুক্ত একটি ভারতীয় কোম্পানির হয়ে কাজ করছেন সুনীল খাট্টার। মেট্রোরেলের পুরো প্রক্রিয়াটি কীভাবে কাজ করছে, তা পর্যবেক্ষণ করতে তিনি এসেছেন। তাই আগারগাঁও থেকে উত্তরা উত্তর স্টেশনে যাচ্ছিলেন তিনিও। সুনীল খাট্টার বলেন, এটা মেট্রোরেলের প্রথম দিন। আমি দেখতে পাচ্ছি, এখানকার মানুষ অত্যন্ত আনন্দিত। এটি বাংলাদেশের মানুষের জন্য ইংরেজি নববর্ষের উপহার। প্রথম দিনে মানুষ খুব দারুণ আচরণ করছেন। আজকে এটি শুধুমাত্র চার ঘণ্টার জন্য চালু হচ্ছে, তবে আগামী মার্চ মাস থেকে এটি পুরোদমে চলবে। আমি মনে করি, এটি একটি অসাধারণ ব্যবস্থা।

মেট্রোরেল ছাড়ার পরপরই মুরাদ, মোজাম্মেল ও শামীম নামের তিন বন্ধু মিলে সেলফি তুলছিলেন। মেট্রোরেলে ওঠার পর থেকেই তারা আবেগে আপ্লুত। একটি বায়িং হাউজের মালিক মুরাদ। তিনি বলেন, প্রথম প্রহরে আসছি উপভোগ করার জন্য। ইতিহাসের অংশীদার হওয়ার জন্য। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদের ঢাকাবাসীর জন্য সুন্দর একটা পরিবহন ব্যবস্থা তৈরি করার জন্য। আমরা সবাই আবেগ আপ্লুত। গৃহিণী হেলেনা বেগম। দুই সন্তানকে নিয়ে মেট্রোরেল ভ্রমণে এসেছেন। থাকেন উত্তরার দিয়াবাড়ি এলাকায়। মেট্রোরেলে করে উত্তরা থেকে আগারগাঁও এসে ফের উত্তরা যাচ্ছিলেন। তিনি বলেন, খুবই আনন্দ লাগছে। ট্রেনের ভেতর খুবই সুন্দর পরিবেশ। আমাদের এলাকার মানুষের জন্য মেট্রোরেল গর্বের।
মেট্রোরেলের ভেতর থেকে নিজের মোবাইলে লাইভ করছিলেন আবির হোসেন। মেট্রোরেলের কর্মযজ্ঞের সঙ্গে সম্পৃক্ততা ছিল তার। কাজ করেছেন সহকারী সার্ভেয়ার হিসেবে। আবির জানান, দীর্ঘ চার বছর তিনি এই মেট্রোরেলে কাজ করেছেন। তবে কখনো মেট্রোরেলে ওঠা হয়নি। আজকে ওঠতে পেরে তার আনন্দের সীমা নেই। তাই মোবাইলে লাইভ করে সেই আবেগঘন মুহূর্ত বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করছেন।

আগারগাঁও থেকে উত্তরা পর্যন্ত মাত্র ১০ মিনিটেই পৌঁছে গেল মেট্রোরেল। ভেতরে থাকা যাত্রীরা যেন বিষয়টি বিশ্বাসই করতে পারছিলেন না। তারা বলছেন, আগারগাঁও থেকে উত্তরা বাসে আসলে যানজটে কাবু হতে হয়। কয়েক ঘণ্টা লেগে যায়। অথচ মেট্রোরেলে তারা ১০ মিনিটে চলে আসলেন যা অবিশ্বাস্য মনে হচ্ছে তাদের। সব ছাপিয়ে নির্বিঘ্নে খুব দ্রুত সময়ে যাতায়াত করার জন্য মেট্রোরেলকে খুবই উপযোগী গণপরিবহন হিসেবে দেখছেন এসব মানুষ। বাংলাদেশ আনসার বাহিনীর সদস্য দেব বিশ্বাস বলেন, উত্তরা থেকে আগারগাঁও যেতে দুই থেকে আড়াই ঘণ্টা লাগে। আজ মেট্রোরেলের মাধ্যমে সুন্দর পরিবেশে দ্রুত যেতে পারছি। আমরা যারা চাকরি করি; আমাদের সময় বাঁচবে। কষ্ট কম হচ্ছে। এটা খুব আনন্দের।

মেট্রোরেলে ওঠতে না পেরে আক্ষেপ নিয়ে ফেরেন হাজারো মানুষ: গতকাল সকাল ৮টা থেকে মেট্রোরেল যাত্রা শুরু করে। তবে কুয়াশা ঢাকা ভোর ৬টা থেকেই স্টেশনে যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় ছিল। দুপুর ১২টার পর থেকে বন্ধ হয়ে যায় মেট্রোরেল চলাচল। এরপরও দীর্ঘলাইনে থাকা হাজার হাজার মানুষ অপেক্ষায় থাকেন। তবে দুই-তিন ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও তারা প্রথম দিনে মেট্রোরেলে ওঠার সুযোগ পাননি। এতে আক্ষেপ নিয়ে বাড়ি ফেরেন এসব দর্শনার্থী যাত্রীরা। ১২টায় মেট্রোরেলের স্টেশনে ওঠার প্রবেশপথ বন্ধ করে দিলে হই-হুল্লোড় করেন স্টেশনের কাছে থাকা যাত্রীরা। সোহাগ হোসেন নামের এক চাকরিজীবী বলেন, প্রথম দিন মেট্রোরেলে করে অফিসে যাবো ভেবেছিলাম। কিন্তু এখানে এসে দেখি অনেক বড় লাইন। তাও দাঁড়িয়েছিলাম। কিন্তু স্টেশনের কাছাকাছি যাওয়ার পরে আর ওঠতে পারিনি। ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেয়। স্ত্রীকে নিয়ে মেট্রোরেল ভ্রমণ করতে এসেছিলেন বিল্লাল হোসেন। তবে তিনিও দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়ে ওঠতে পারেননি। এর আগেও মেট্রোরেল চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। বিল্লাল বলেন, আশা করে এসেছিলাম। কিন্তু ওঠতে পারলাম না। মানুষ অনেক বেশি ছিল। শুক্রবার ছুটির দিন আবার আসবো। রাব্বি হোসেন বলেন, স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে দুই ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়েছিলাম। কিন্তু শেষে আর ওঠতে পারলাম না।

সারা দেশ থেকে ছুটে এসেছিলেন অনেকে: মেট্রোরেলে স্বস্তির যাত্রায় উচ্ছ্বাস ছিল নগরবাসীর। দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে এসেছিলেন ভ্রমণ পিপাসুরা। উদ্বোধনের পরদিনই স্বপ্নের মেট্রোরেলে বাণিজ্যিকভাবে যাত্রী পরিবহন শুরু হয়েছে।

চাঁপাই নবাবগঞ্জ থেকে এসেছিলেন রাসেল হোসেন। তিনি আগারগাঁও স্টেশনে দীর্ঘ দুই ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। দুপুর ১২টা বাজলে ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দিলে মন খারাপ হয়ে যায় তার। রাসেল বলেন, দীর্ঘ দুই ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলাম। এখন ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। রাজশাহী থেকে রাতে ঢাকায় এসেছি। ভেবেছিলাম আজ ট্রেনে উঠে রাতেই ফিরে যাবো রাজশাহী। কিন্তু ভাগ্যে সেটা ছিল না। আজ হোটেলে কোনোমতে রাতে থেকে সকাল পাঁচটার সময় আবার আগারগাঁও স্টেশনে আসবো। এটা আমার জন্য অনেক খুশির।

ইকবাল হোসেন বলেন, দূর থেকে এসে আজ ট্রেনে উঠতে পারিনি তাতে কোনো দুঃখ নেই। কাল ট্রেনে উঠে তারপর ফিরে যাবো কুমিল্লায়। রাতে ধানমণ্ডি বোনের বাসায় থাকবো। মেট্রোরেল আমাদের দেশের জন্য গর্বের।

খুলনা থেকে প্রথম দিনে ট্রেনে চড়তে এসেছিলেন বেল্লাল। তিনি সকাল থেকে লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। বেল্লাল বলেন, আমি রাতেই খুলনা থেকে এসেছি। শুধু ট্রেনে চড়ে আবার খুলনাতে ফিরে যাবো। রাতে হোটেলে ছিলাম। এই মেট্রোরেল আমাদের জন্য গর্বের। সে জন্য ইতিহাসের সাক্ষী হতে চলে এসেছি।

সানজিদ বলেন, আমরা কয়েক বন্ধু মিলে ফরিদপুর থেকে এসেছি। সকাল ৭টায় এসে লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলাম। কিছুক্ষণ পরেই টিকিট কেটে ট্রেনে উত্তরার দিকে যাই। সেখান থেকে আবার আগারগাঁও স্টেশনে ফিরে আসি। এই ট্রেনে ওঠার জন্যই আজ শুধু ঢাকায় এসেছি। সারাদিন ঘুরে আবার সন্ধ্যায় ফিরে যাবো।

মিরপুর ২ নম্বর থেকে পুরো পরিবারকে নিয়ে প্রথম দিন ট্রেনে ওঠার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন সাকিব মোল্লা। তিনি একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করেন। সাকিব বলেন, মেট্রোরেলের কাজ শুরু থেকে এই রাস্তায় খুব ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। এমনকি এক ঘণ্টাও বাসে একই জায়গায় বসে থাকতে হতো। এই প্রকল্পের সঙ্গে আমাদের কষ্ট ও ত্যাগ মিশে রয়েছে। আজ মেট্রোরেল সবার জন্য খুলে দিয়েছে এটা সবচেয়ে গর্বের।
পাসপোর্ট অফিসের সামনে লাইনে দাঁড়িয়ে সেলফি তুলেছিলেন রাকিব। তিনি বলেন, আজ আমাদের আনন্দের দিন। প্রথম দিনেই মেট্রো ট্রেনে উঠতে চাই। আমরা কয়েক বন্ধু মিলে রাতেই প্ল্যান করে রেখেছিলাম। মতিঝিল থেকে সকাল ৮টায় রওনা দিয়েছি। দুই ঘণ্টা ধরে লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। তবুও খুব ভালো লাগছে।

পরিবার নিয়ে শ্যামলী থেকে এসেছেন নাজমা বেগম। তিনি বলেন, দুই মেয়েকে প্রথমদিন ট্রেনে চড়িয়ে স্মৃতি ধরে রাখতে চাই। আমরা এই দিনটির অপেক্ষায় ছিলাম। এটা আমাদের দেশের জন্য গর্বের। শিক্ষার্থী রুম্পা বলেন, আমি লালবাগ থেকে এসেছি সকাল ৮টায়। এখন গেট বন্ধ করে দিয়েছে। এতক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে কোনো লাভ হলো না। সবুজ বলেন, অনেক আশা নিয়ে এসেছিলাম প্রথম দিন ট্রেনে উঠতে। কিন্তু বন্ধ করে দিয়েছে।

প্রথম দিন মেট্রোতে চড়েছেন ৩৮৫৭ যাত্রী: মেট্রোরেল উদ্বোধনের পর গতকাল ছিল প্রথম দিন। এদিন মেট্রোরেলে উঠতে স্টেশনগুলোতে ভিড় করেন হাজার হাজার মানুষ। প্রথম দিন ৩ হাজার ৮৫৭ যাত্রী মেট্রোতে চড়েছেন। আর সরকার প্রথম দিনে যাত্রীদের কাছ থেকে ভাড়া বাবদ আদায় করেছে দুই লাখ ২৫ হাজার ৩৬০ টাকা। মেট্রোরেল সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এসব তথ্য জানিয়েছেন। তারা জানান, দিয়াবাড়ী থেকে সকাল ৮টায় যাত্রী নিয়ে প্রথম ট্রেন আগারগাঁওয়ের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। আর আগারগাঁও থেকে দিয়াবাড়ীর উদ্দেশ্যে প্রথম ট্রেনটি ছাড়ে সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে। প্রথমদিকে সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত চলছে মেট্রো। ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ডেপুটি সেক্রেটারি (জনসংযোগ) নজরুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, যাত্রী নিয়ে চলাচল করার প্রথম দিনে মেট্রোরেলে সিঙ্গেল জার্নি ও এমআরটি পাস নিয়ে ভ্রমণ করেছেন ৩ হাজার ৮৫৫ জন। এর মধ্যে ৩ হাজার ৭৫৬ জন সিঙ্গেল জার্নির টিকিট কিনেছেন। এ থেকে আয় হয়েছে ২ লাখ ২৫ হাজার ৩৬০ টাকা। আর এমআরটি পাস কেনেন ৯৯ জন, যেখান থেকে আয় হয়েছে ৪৯ হাজার ৫০০ টাকা। সব মিলিয়ে মেট্রো কর্তৃপক্ষের আয় হয়েছে ২ লাখ ৭৪ হাজার ৮৬০ টাকা। তিনি জানান, প্রথম দিন র‌্যাপিড পাস নিয়েও দুজন ভ্রমণ করেছেন।

 

সূত্র : মানবজমিন 

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com