1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
মোটরসাইকেল ব্যবহার, দুর্ঘটনা এবং মৃত্যু! - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৫:৫১ অপরাহ্ন
Title :
তিতাসে জাগ্রত একতা সংঘের সভাপতি শফিকুল ইসলামকে সংবর্ধনা দেবীদ্বারে আগ্নেয়াস্ত্রসহ ডাকাত দলের ১ সদস্য গ্রেফতার চান্দিনায় শ্রমিক অবরোধ : পারিশ্রমিকের দাবিতে মহাসড়ক স্তব্ধ কুমিল্লায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ৫২ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারি গ্রেফতার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে শ্রমিক আন্দোলনে যানজট চৌদ্দগ্রামে গাঁজা-ইয়াবা উদ্ধার, কথিত সাংবাদিকসহ আটক ১৩ চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় কাভার্ডভ্যান চালক নিহত ঈদে পরিবার ছেড়ে রাস্তায় : হাইওয়ে পুলিশের অক্লান্ত সেবায় সুরক্ষিত যাত্রা “কলেজের করিডোরে হৃদয়ের হাসি : বৃষ্টি ও সাহিত্যের মিলন” পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই চক্রের মূল হোতা গ্রেফতার

মোটরসাইকেল ব্যবহার, দুর্ঘটনা এবং মৃত্যু!

শাহজালাল আল-নাগর :
  • Update Time : শুক্রবার, ২২ এপ্রিল, ২০২২
  • ৩৪৬৮ Time View

মোটরসাইকেল একটি জনপ্রিয় বাহন! আমাদের মতো উন্নয়নশীল দেশে এটি অনেক জনপ্রিয় ও পছন্দের। ৮০/৯০ দশকে মোটরসাইকেল ক্রয় করা ছিল সোনার হরিণ এর মতো। যারা উচ্চ পদস্থ চাকুরীজীবি, ব্যবসায়ী বা রাজনীতিবিদ তারা ই মূলত বিশেষ প্রয়োজনে মোটরসাইকেল ব্যবহার করতেন, তবে তার সংখ্যায় মেবি ৪/৫% হতে পারে। যারা ই তখন ড্রাইভ করতেন খুবই সতর্কতার সাথে করতেন।
.
চালক ব্যতীত আরোহী একজনের বেশি নেওয়াও ঝুঁকিপূর্ন, চলন্ত অবস্থায় মোবাইলে চালক ও আরোহী কথা ঠিক নয়।
হেলমেটবিহীন ফাইন ৩০০০/-
তিনজন আরোহী ৩০০০/-
মোবাইলে কথা বলা ৩০০০/-
ধারা উল্লেখ না করে অনিরাপদ ড্রাইভিং ২৫০০/-
ড্রাইভি লাইসেন্স না থাকলে ৫০০০/-
ট্যাক্স টোকেন ও রেজিষ্ট্রেশন না থাকলে ১০০০০/-
একই অপরাধ দ্বিতীয় বার করলে ডাবল জরিমানা
এসব অপরাধ করে পরিচিত নেতা,পুলিশভাইদের ফোন ধরিয়ে দিয়ে বিব্রত করা ঠিক না।
নিজেই আইন ভঙ্গ করে পুলিশকে ঘুষ অফার করে কিংবা ঘুষের অফারে সাড়া দিয়ে অনৈতিক কাজে সহযোগিতা করে এলাকায় প্রচার পুলিশ ঘুষ খায়।
ঘুষ দেওয়া ও নেওয়া উভয়ই অপরাধ ও পাপকাজ।
.
গত কয়েক বছর যাবত মোটরসাইকেল ব্যবহারকারী বৃদ্ধি পেয়েছে ঠিকই কিন্ত ডিফেন্সিভ চালক বৃদ্ধি পায়নি যা রাস্তাঘাটে বিভিন্ন সড়ক দুর্ঘটনায় ই বলে দেয় তাদের মোটরসাইকেল স্কিল কেমন?
.
এখনো দক্ষ চালক আছেন, যারা সুন্দর ও ভদ্রতার সাথে সকল নিয়মকানুন ফলো করে তাদের মোটরসাইকেল চালিয়ে থাকেন। তবে, বর্তমানে সড়কে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় বড় একটি সংখ্যা দেশের উঠতি বয়সের তরুণ ও যুবক এবং প্রতিদিন ই দুর্ঘটনায় তরুণদের মৃত্যু হচ্ছে যা খুবই দুঃখজনক।
.
গত কয়েকমাস পূর্বে, আমি ছুটিতে দেশে ছিলাম। আমাদের কংশনগর গোমতী সেতু থেকে গোবিন্দপুর গোমতী সেতু পর্যন্ত নদীর বেড়িবাঁধ প্রশস্ত করেছে সরকার। বেড়িবাঁধ টি পাকা হওয়াতে ও রাস্তার দুইপাশে বিভিন্ন গাছগাছালি থাকায় তার সৌন্দর্য সন্ধায় অনেক বৃদ্ধি পায়। তাই, অনেক মোটরসাইকেল ব্যবহারকারী সন্ধায় এমনভাবে চালিয়ে মোহড়া দেয় যা যে কোন ভদ্র মানুষ দেখলেই আশ্চর্য হবে ও ভয় পাবে। এরাই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এক্সিডেন্ট করে থাকে।
.
তরুণ মোটরসাইকেল চালক
হাইস্কুল কিংবা কলেজে পড়ে এমন ছাত্রকে কেন মোটরসাইকেল কিনে দিতে হবে? এতই বেশি সম্পদ হয়ে গেল যে অল্প বয়সেই তাকে মোটরসাইকেল দিতে হবে। সম্প্রতি অনেক এক্সিডেন্ট দেখেছি হাইস্কুল/কলেজের ছাত্র সড়কে এক্সিডেন্ট করে মারা যাচ্ছে।

অনেকে আবার রাস্তাঘাটে মানুষ দেখলেই স্পিড বাড়িয়ে দেয়। আর কোনো তরুণীকে দেখলে তো আর কোনো কথা নেই, স্পিড বাড়িয়ে দেয় ও বিপ বাজিয়ে থাকে।

কিছু আছে বন্ধু বা পরিচিতদের থেকে ধার এনে কিছুক্ষণ চালাতে এনে থাকে। এদের যে স্টাইল….

কিছু আছে, মনে হয় যে মহারাজা। রাস্তাটাকে পিতৃ সম্পদ মনে করে।

কিছু আছে কাজ কর্ম নাই, আয়ের উৎস নাই, অথচ বাইক নিয়ে চলছে তো চলছেই…. এরা অসদুপায়ে উপার্জন করে থাকে।

প্রায় দিন ই আমরা দেখছিঃ অগণিত তরুণ বা যুবক মোটরসাইকেল এক্সিডেন্ট করে রাস্তায় মারা যাচ্ছে যা খুবই দুঃখজনক। কথায় আছে সাবধানে মার নেই। যদি সুন্দর, সাবলিল ও ভদ্রভাবে চালাতো অনেক এক্সিডেন্ট কমে যেতো।

অনেক নির্বাচনে ও মিটিংয়ে নেতা বা অতিথিদের স্বাগতম জানিয়ে আনতে শতশত মোটরসাইকেল নিয়ে যায় কিন্ত ৯৯% চালকের কোনো হ্যালমেট থাকেনা ও ব্যবহার করেনা যা খুবই দৃষ্টিকটু এবং অগ্রহণযোগ্য। আর এটির জন্য দায়ী নেতা বা সংশ্লিষ্ট অতিথি। উনারা কোনো ভাবেই এই ব্যর্থতার দায় এড়াতে পারেনা।

এত দামি মোটরসাইকেল ক্রয় করার টাকা পায় কোথায় থেকে ও আয়ের উৎস কি? অনেকেই তার সদুত্তর দিতে পারবেনা।

নিজের হালাল কষ্টার্জিত টাকা দিয়ে মোটরসাইকেল কিনে থাকলে কজনই এভাবে ওভারস্পিড ও হর্ণ বাজিয়ে অন্যদের হয়রানি করে চালাতো?

আপনি একজন মোটরসাইকেল চালক???
– লিমিট ইউর স্পিড। কোথায়ও যাবেন ও জরুরী। একটু আরলি বাহির হোন। সময় ও জীবনকে মূল্যায়ন করুন। একটু ভুলের কারণে মৃত্যু ও হতে পারে।

– অহেতুক হর্ণ বাজাবেন না। প্রতিযোগিতা করে ওভারস্পিডে চালানো থেকে বিরত থাকুন।
– আপনার বাইকে, অন্য কাউকে বা নতুন চালককে দিবেননা।
– হ্যালমেট ছাড়া বাইক চালাবেননা। সকলকে হ্যালমেট ব্যবহার করতে উৎসাহিত করুন।
– জনবহুল এলাকায় ভদ্রভাবে ড্রাইভ করুন। স্পিড কমিয়ে ড্রাইভ করুন।
– স্কুল, কলেজ তথা যেই কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে দিয়ে যাওয়ার পথে স্পিড কমিয়ে ও ভদ্রভাবে চালিয়ে যাবেন।
– রাস্তাঘাটে তরুণী/মহিলা দেখলে নিজেকে হিরো মনে করে বা বাইকার মনে করে ওভারস্পিডে চালাবেননা।

ট্রাফিক আইন জানুন, পড়ুন ও মেনে চলুন।

লেখকঃ সৌদি প্রবাসী সাংবাদিক ও সমাজকর্মী শাহজালাল আল-নাগর।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com