1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
সাংবাদিকতার ছদ্মবেশে অপরাধের আস্তানা : সত্য ও সংবাদের মধ্যে লুকানো অন্ধকারের খোঁজে - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৪:৩৮ অপরাহ্ন
Title :
তিতাসে জাগ্রত একতা সংঘের সভাপতি শফিকুল ইসলামকে সংবর্ধনা দেবীদ্বারে আগ্নেয়াস্ত্রসহ ডাকাত দলের ১ সদস্য গ্রেফতার চান্দিনায় শ্রমিক অবরোধ : পারিশ্রমিকের দাবিতে মহাসড়ক স্তব্ধ কুমিল্লায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ৫২ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারি গ্রেফতার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে শ্রমিক আন্দোলনে যানজট চৌদ্দগ্রামে গাঁজা-ইয়াবা উদ্ধার, কথিত সাংবাদিকসহ আটক ১৩ চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় কাভার্ডভ্যান চালক নিহত ঈদে পরিবার ছেড়ে রাস্তায় : হাইওয়ে পুলিশের অক্লান্ত সেবায় সুরক্ষিত যাত্রা “কলেজের করিডোরে হৃদয়ের হাসি : বৃষ্টি ও সাহিত্যের মিলন” পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই চক্রের মূল হোতা গ্রেফতার

সাংবাদিকতার ছদ্মবেশে অপরাধের আস্তানা : সত্য ও সংবাদের মধ্যে লুকানো অন্ধকারের খোঁজে

রুহুল আমিন চৌধুরী সুমন :
  • Update Time : শুক্রবার, ৩১ মে, ২০২৪
  • ৩০৮৭ Time View

কুমিল্লায় সাংবাদিকতার নামে চলছে এক অশুভ খেলা। জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের মিডিয়া সেন্টার থেকে পরিচালিত একটি ওয়াটসআপ গ্রুপে যেখানে সত্যিকারের সাংবাদিকদের থাকার কথা, সেখানে বিরাজ করছে অপ-সাংবাদিকতা। এই গ্রুপের অধিকাংশ সদস্য হলেন তথাকথিত সাংবাদিক, যারা সাংবাদিকতার আড়ালে চালাচ্ছেন চাঁদাবাজির মতো অপকর্ম। এই চাঁদাবাজির ঘটনা ঘটছে ব্রীকফিল্ড, বেকারি, হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক সেন্টার, থানা, পুলিশ ফাঁড়ি, ভূমি অফিস, বিআরটিএ অফিস, সিএনজি স্টেন্ড এবং মাটি ও বালু উত্তোলনের স্থানগুলোতে। এসব অপকর্মের ফলে কিছু কথিত সাংবাদিক গণধোলাইয়ের শিকারও হয়েছেন।

এই অপ-সাংবাদিকরা নিজেদেরকে ঢাকার ভূঁইফোড় সংগঠনের নেতা পরিচয় দিয়ে চাঁদাবাজি করছেন এবং মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করছেন। এই অপকর্মের ফলে সাংবাদিকতার মর্যাদা ক্ষুণ্ণ হচ্ছে এবং সাধারণ মানুষের মধ্যে সাংবাদিকতার প্রতি অবিশ্বাস সৃষ্টি হচ্ছে।

পুলিশের পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তি হুবহু ছেপে তার আবার গ্রুপে দেয়া হয়, যা সাংবাদিকতার মৌলিক নীতিমালা ও নৈতিকতার প্রতি প্রশ্ন তোলে। এই গ্রুপে ভূঁইফোড় সংগঠনের নেতার নিয়ন্ত্রণে স্বামী পরিত্যাক্তা, দালাল, বাটপার ও টিপসহি নারীদের আনাগোনা লক্ষণীয়। এঁরা এসব নারীদের নিয়ে রাতভর বিভিন্ন জায়গায় দামি গাড়ি নিয়ে অভিযান পরিচালনা করে। এদের বিরুদ্ধে কথা বললে নারী নির্যাতন মামলায় জড়িয়ে হয়রানি করার ও হুমকি শুনতে হয়। অভিযোগ রয়েছে নারী সাংবাদিক দিয়ে ধনীর দুলাল দের প্রেমে ফাঁদে ফেলে টোপ পাতা হয়। এরপর কৌশলে নিরাপদ স্থানে নিয়ে আপত্তিকর ছবি তুলে মোটা অংকের টাকা আদায় করা হয়ে থাকে। সাম্প্রতিক সময়ে থানা ও ডিবি পুলিশ এই চক্রের ডজনখানেক অপরাধীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। সূত্র জানান, ওই চক্রের কিছু সদস্য কুমিল্লা পুলিশ মিডিয়া গ্রুপে ঘাপটি মেরে বসে আছে।

এই পরিস্থিতিতে প্রেসক্লাব নেতাদের সাথে কথা বলে এসব কথিত সাংবাদিকদের গ্রুপ থেকে বের করে একটি দায়িত্বশীল গ্রুপ গঠন করা জরুরি। এই গ্রুপ থেকে মূলধারার কয়েকজন সিনিয়র সাংবাদিককে রিমুভ করার পর গ্রুপে সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে এবং সবাই নিজনিজ অবস্থান থেকে প্রতিবাদ করেছেন। মিডিয়া সেলের দায়িত্বশীল একজন প্রতিবাদী সবাইকে ফোন করে জানিয়েছেন যে, ভুলবশত রিমুভ হয়ে গেছে এবং শিগগিরই গ্রুপে ওদের এড করে নেয়া হবে।

কুমিল্লার সিনিয়র সাংবাদিক মোঃ শহিদুল্লাহ বলেন, পুলিশ ও সাংবাদিকরা মিলেমিশে বিগত দিনে কাজ করেছেন এবং এখনো করছেন। তিনি আরও বলেন, একটি ওয়াটসআপ গ্রুপ থেকে মূলধারার সিনিয়র সাংবাদিকদের রিমুভ করে তথাকথিত “ব” কলম সাংবাদিকদের গ্রুপে রেখে আমাদের লজ্জা দেওয়া সত্যি ব্যাধনাদায়ক। কুমিল্লার চৌকস মেধাবী পুলিশ সুপার এসপি আবদুল মান্নান সাহেব ও মিডিয়া সেলের দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান রাফি বিষয়টি গুরুরত্ন সহকারে দেখবেন বলে আমরা আশাবাদী। তাদের এই ভূমিকা সাংবাদিকতার মর্যাদা রক্ষায় এবং অপ-সাংবাদিকতা দমনে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

সাংবাদিকতার নীতিমালা ও নৈতিকতা: সাংবাদিকতার মৌলিক নীতিমালা হলো সততা, নির্ভুলতা, ও পক্ষপাতহীনতা। এই তিনটি হলো সাংবাদিকতার নীতিমালার মূল ভিত্তি। সাংবাদিকতায় নৈতিকতা বা এথিকস অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, যা আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত। একটি গণমাধ্যম একজন বা একাধিক ব্যক্তির অর্থ বিনিয়োগে পরিচালিত হলেও, গণমাধ্যমের মালিক বা পরিচালকদের উচিত সংবাদের নিরপেক্ষতা ও সত্যতা নিশ্চিত করা। সাংবাদিকতায় সততা ও নির্ভুলতা অপরিহার্য। প্রতিটি সংবাদের সাথে সঠিক ও নিরপেক্ষ তথ্য প্রদান করা এবং সংবাদের প্রতি পক্ষের মতামত সমানভাবে তুলে ধরা উচিত। সাংবাদিকতা শুধুমাত্র তথ্য প্রকাশ করার মাধ্যম নয়, এটি সমাজের কণ্ঠস্বর। সাংবাদিকদের উচিত তাদের কাজের মাধ্যমে সমাজের উন্নতি সাধন করা এবং অন্যায় ও অবিচারের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়া। কুমিল্লার মতো একটি জেলায় যেখানে সাংবাদিকতা একটি গর্বিত পেশা হিসেবে দেখা হয়, সেখানে কিছু অশিক্ষিত ও মাদকাসক্ত ব্যক্তির অপকর্ম সমগ্র পেশার মর্যাদাকে ক্ষুণ্ণ করছে। এই অপকর্মীরা নিজেদেরকে ভূঁইফোড় সংগঠনের নেতা পরিচয় দিয়ে সাধারণ মানুষের পারিবারিক বিষয় সামনে এনে ব্লাকমেইলিং করে থাকে। এই অপকর্মীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়া এবং তাদের অপকর্ম প্রকাশ করা জরুরি।

আমরা আশা করি কুমিল্লার সিনিয়র সাংবাদিক মোঃ শহিদুল্লাহ এবং মিডিয়া সেলের দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান রাফি এই বিষয়ে উপযুক্ত পদক্ষেপ নেবেন এবং সাংবাদিকতার মর্যাদা রক্ষা করবেন। সত্যিকারের সাংবাদিকদের উচিত এই অপকর্মীদের বিরুদ্ধে একত্রিত হয়ে প্রতিবাদ করা এবং সাংবাদিকতার সত্যিকারের চেহারা তুলে ধরা। এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে আমরা সমাজের সকল স্তরের মানুষকে সচেতন করতে চাই এবং সাংবাদিকতার মর্যাদা রক্ষায় সকলের সহায়তা চাই।

 

লেখক : শিক্ষানবিশ আইনজীবী ও সাংবাদিক।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com