1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
“সাংবাদিকতার মুখোশে অপকর্ম : সত্যের সন্ধানে অবিচল” - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৩:৫৩ অপরাহ্ন
Title :
তিতাসে জাগ্রত একতা সংঘের সভাপতি শফিকুল ইসলামকে সংবর্ধনা দেবীদ্বারে আগ্নেয়াস্ত্রসহ ডাকাত দলের ১ সদস্য গ্রেফতার চান্দিনায় শ্রমিক অবরোধ : পারিশ্রমিকের দাবিতে মহাসড়ক স্তব্ধ কুমিল্লায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ৫২ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারি গ্রেফতার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে শ্রমিক আন্দোলনে যানজট চৌদ্দগ্রামে গাঁজা-ইয়াবা উদ্ধার, কথিত সাংবাদিকসহ আটক ১৩ চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় কাভার্ডভ্যান চালক নিহত ঈদে পরিবার ছেড়ে রাস্তায় : হাইওয়ে পুলিশের অক্লান্ত সেবায় সুরক্ষিত যাত্রা “কলেজের করিডোরে হৃদয়ের হাসি : বৃষ্টি ও সাহিত্যের মিলন” পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই চক্রের মূল হোতা গ্রেফতার

“সাংবাদিকতার মুখোশে অপকর্ম : সত্যের সন্ধানে অবিচল”

আজিব অন্বেষণ :
  • Update Time : বুধবার, ১৫ মে, ২০২৪
  • ৩১৩৫ Time View

মহান পেশার বারোটা বাজাচ্ছে কিছু সাংঘাতিক সাংবাদিকতা একটি মহান পেশা হিসেবে সারা বিশ্বে সর্বজনীন স্বীকৃত। গণমাধ্যম তথা সাংবাদিকতাকে একটি জাতি কিংবা রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ হিসেবে আখ্যা দেওয়া হয়। সংবাদ সংগ্রহ ও প্রকাশ করাই নয় একটি সাংবাদিকের সমাজ ও রাষ্ট্রের প্রতি রয়েছে অনেক দায়িত্ব ও কর্তব্য। সততা নিষ্ঠা সাহসিকতার সাথে সমাজের সকল সংগতি অসঙ্গতি পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে যাচাই-বাছাই করে জনগণের কাছে তুলে ধরা একজন সাংবাদিকের নৈতিক দায়িত্ব। অন্যায়ের কাছে মাথা নত না করে সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিকরা জনগণের হৃদয়ের মনিকোঠায় অবস্থান করেন। তাই এ মহান পেশার প্রতি জনগণের রয়েছে প্রগাঢ় শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা। সাংবাদিক পেশায় যেমনটা ঝুঁকি রয়েছে তেমন রয়েছে সম্মান। কিন্তু সাংবাদিকতার মুখোশ পড়ে নানান অপকর্মে লিপ্ত হয়ে পড়েছে দেশের যুবক যুবতীদের একটি বৃহৎ অংশ।

সংবাদ কর্মীদের প্রতি সর্বস্তরের জনগণেরই রয়েছে জবাবদিহীতার প্রথা। তাই সমাজের সকল শ্রেণী পেশার মানুষ যখন অপরাধের সাথে সম্পৃক্ত হয় তখনই সংবাদ কর্মীদের প্রতি তাদের নিজ মনে ভয়ের জন্ম নেয়। সংবাদ মাধ্যমের এসব ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে নানান অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে দেশের যুব সমাজের একটি বৃহৎ অংশ। সারাদেশে প্রায় বিশ হাজার মিডিয়ার ডিক্লিয়ারেশন রয়েছে, এতে কাজ করছে লক্ষ্য লক্ষ্য সংবাদকর্মী। আর এখন ইউটিউব, ফেসবুকের কল্যাণে যে কেউ বনে যাচ্ছে সাংবাদিক, যদিও সাংবাদিক পেশায় আসার আগে সাংবাদিকতার বৈশিষ্ট্য ও নীতি-নৈতিকতার সম্পর্কে বিশদ ধারণা থাকা প্রয়োজন, প্রয়োজন রয়েছে অভিজ্ঞতা অর্জনের ও, গণমাধ্যমের প্রভাব খাটিয়ে লোকাল এরিয়া গুলোতে সাংবাদিক সেজে চাঁদাবাজি, মাদক নিয়ন্ত্রণ, প্রশাসনের সোর্স হয়ে সর্বসাধারণের উপর বল প্রয়োগ করা সহ নানান অপকর্মে জড়িয়ে পড়ছে অনেকেই, এদের বেশিরভাগই প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাগত যোগ্যতাহীন। অশিক্ষিত অর্ধশিক্ষিত বেকাররাই শর্টকাটে অর্থ উপার্জনের জন্য পড়ে নিচ্ছে সাংবাদিকতার মত মহান পেশার মুখোশ। নাম সর্বস্ব গণমাধ্যম কিংবা ইউটিউব চ্যানেল এমনকি স্বনামধন্য স্যাটেলাইট টেলিভিশনেও অর্থের বিনিময় সাংবাদিক হিসেবে অ্যাপয়েন্টমেন্ট পাওয়ার জন্য তারা খরচ করে লক্ষ লক্ষ টাকা, অতঃপর সে টাকা উসুল করে ওরা রাতারাতি অঢেল টাকার মালিক হতে ওইসব তথাকথিত সাংবাদিকরা সাধারণ জনগণকে করে জিম্মি। এদের দাপট প্রভাবের সামনে মূলধারার পেশাদার সাংবাদিক রাও হাঁপিয়ে উঠছে।

সারাদেশের ছোট বড় বিভিন্ন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান রয়েছে বিশ হাজারেরও বেশি, এতে কর্মরত রয়েছে অনেক পেশাজীবী সাংবাদিক। যাদের বেশির ভাগই সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাচ্ছে। আবার এ সকল প্রতিষ্ঠানেই নিয়োগ নিচ্ছে সেইসব ভুঁইফোড় সাংবাদিক রুপী সাংঘাতিকরা, করে বেড়াচ্ছে চাঁদাবাজি, মাদক নিয়ন্ত্রণ সহ নানান অপকর্ম। কিন্তু এ সকল অসঙ্গতি থেকে যারা দূরে রয়েছে তাদের হর হামেশাই শুনতে হচ্ছে বড় প্রতিষ্ঠানে কর্মরত সাংবাদিকদের টিপ্পনী। কোন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানের অর্থনৈতিক অবস্থা মজবুত এবং ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা থাকলেই তাকে আমরা মূলধারার গণমাধ্যম-মিডিয়া হাউস হিসেবে গণ্য করি। আর এ সকল গণমাধ্যমে যে সকল সাংবাদিকরা কাজ করে তাদের বেশিরভাগই নিজেদেরকে সর্বেসর্বা মনে করে থাকে। তারা বলে বেড়ায় তারা যা লিখে, হাজার জন তা পড়ে। এদের জবাবদিহিতার জন্য তেমন কেউ থাকেনা। গণমাধ্যমের বহুল প্রচারিতার ক্ষমতা বলে এদের কেউ কেউ হয়ে ওঠে প্রচন্ড আত্ম অহংকারী। বিভিন্ন সূত্রে জানা যায় কথিত বড় গণমাধ্যমের সাংবাদিকরা বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানগুলোর দুর্নীতি ও অনিয়ম ঢেকে রাখতে মাসে মাসে কোটি কোটি টাকা নিজ ভান্ডারে জমা করে। এদের কেউ কেউ স্বর্ণ চোরাচালান, বিদেশে মাদক পাচার, স্মাগলিং, মানি লন্ডারিং, টেন্ডার বাজি, মন্ত্রী আমলাদের নিয়ন্ত্রণ করা সহ আরো বড় বড় অপরাধের সাথে জড়িত। কথায় আছে “যে যত বড়, তার অপরাধ ও ততো বড়” কিন্তু যত দোষ সবই কি ছোট প্রতিষ্ঠানে কাজ করা নন্দ ঘোষের?

মহান পেশা সাংবাদিকতার মুখোশ পরে যে সকল সাংঘাতিকেরা বড়োই বেপরোয়া হয়ে উঠেছে, তাদের মুখোশ উন্মোচন করতে দৈনিক কুমিল্লার ডাক পত্রিকার ধারাবাহিক প্রতিবেদন চলমান থাকবে।

লেখক : সাংবাদিক 

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com