1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
সাক্ষীর জেরে নির্দোষী কারাগারে : জনমনে ক্ষোভ - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ১০:০৪ পূর্বাহ্ন
Title :
“কুমিল্লার হোমনায় ব্যবসায়ী হত্যা : আদালতের ঐতিহাসিক রায়ে ৭ জনের মৃত্যুদ- ও ৭ জনের যাবজ্জীবন” চৌদ্দগ্রামে বিদেশ প্রত্যাগত অভিবাসীদের পুনঃএকত্রীকরণে সেমিনার চৌদ্দগ্রামে দুর্নীতি বিরোধী বিতর্ক ও রচনা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ঈদের আগে জাল টাকার ছড়াছড়ি : ক্রেতা-বিক্রেতারা আতঙ্কে চৌদ্দগ্রামে বজ্রপাতে মাটিকাটার শ্রমিক নিহত হারানো পরিবারের সন্ধানে মোহাম্মদ ইয়াসিন: এক দশক পরেও মা’কে খুঁজছেন চৌদ্দগ্রামে ৬০ কেজি গাঁজা সহ কাভার্ডভ্যান জব্দ দেবীদ্বারে কিশোরী ধর্ষণ মামলার আসামী গ্রেপ্তার দেবীদ্বার উপজেলা প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত “আনারসের জোয়ারে উত্তাল কুমিল্লা সদর দক্ষিণ : ইঞ্জিনিয়ার রিপনের বিজয়ের প্রত্যয়ে মুখরিত জনতা”

সাক্ষীর জেরে নির্দোষী কারাগারে : জনমনে ক্ষোভ

বিশেষ প্রতিবেদক :
  • Update Time : বুধবার, ১৫ মে, ২০২৪
  • ৩০৪৬ Time View

কুমিল্লা নগরীর এক হত্যাকান্ডের পরিপ্রেক্ষিতে এক নিরপরাধ ব্যবসায়ীর বাড়ি ঘর ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। আক্তার হোসেন নামের ওই ব্যবসায়ীর পরিবার দাবি করেছেন, আসল খুনিরা এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছেন, অথচ নিরপরাধ আক্তার মিয়া কারাগারে রয়েছেন। এ ঘটনা নগরীতে ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা আক্তার হোসেনকে একজন সহজ-সরল এবং শান্তিপ্রিয় ব্যক্তি হিসেবে চেনেন। তিনি বহুল আলোচিত কাউন্সিলার সোহেল, হরিপদ সাহা এবং মতিন সর্দার (আক্তার হোসেনের কাকা) হত্যা মামলার স্বাক্ষী হওয়ার জেরে একাধিক হত্যা মামলার আসামিরা সদ্য জামিনে মুক্তি পেয়ে আক্তার হোসেনের উপর প্রতিশোধের নেশায় মেতে উঠেছে।

জুনু মিয়ার বোন জেনি আক্তার হিরার ভাষ্যমতে, নিহতের বড় ছেলে প্রান্তের সাথে একমাস আগে স্থানীয় কিশোরদের ঝগড়া হয়েছিল। প্রান্তকে না পেয়ে জুনু মিয়াকে ডেকে নিয়ে হত্যা করে।

আক্তার মিয়ার স্ত্রী লিলি বেগম বলেন, তার স্বামী যাদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলার সাক্ষী হয়েছে এরা শ্লোগান দিয়ে আমার বাড়িতে এসে দামি কমদামি সকল প্রকার আসবাবপত্র লুটপাট করে নিয়ে যায়। পরনের কাপড় ছাড়া কিছুই অবশিষ্ট রেখে যায়নি।

স্থানীয় সূত্র জানান, নিহত জেনি আক্তার হিরার স্বীকারোক্তি মোতাবেক কার সাথে ঝগড়া হয়েছিলো কারা ডেকে নিয়ে গেছে এদের সনাক্ত করতে পারলেই হত্যার রহস্য উদঘাটন হয়ে যাবে। এতে প্রকৃত অপরাধিরা আইনের আওতায় এসে নিরপরাধ ব্যক্তিরা হয়রানি থেকে মুক্তি পেতো।

স্থানীয় এলাকাবাসী কুমিল্লা সদর আসনের এমপি আ ক ম বাহাউদ্দীন বাহার সহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিকট নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত অপরাধিদের আইনের আওতায় আনার জোর দাবি জানাচ্ছেন।

স্থানীয় দোকানদার আবু সালাম মিয়া বলেন, “আক্তার হোসেন একজন সহজ-সরল ভদ্রলোক। হত্যার মতো জগন্য অপরাধ তার পক্ষে কখনোই সম্ভব না। আমরা এর সঠিক তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের বিচারের আওতায় আনার জোর দাবি জানাচ্ছি।”

১৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বাবুল বলেন, “আমি এই এলাকার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে এটাই বলবো প্রকৃত অপরাধির শাস্তি হোক।”

১৬ নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বাবর বলেন, “হত্যা একটি সেনসেটিভ বিষয়। আশা করি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা প্রকৃত অপরাধিদের দ্রুত সনাক্ত করতে সক্ষম হবে।”

ওয়ার্ড যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম ভূইয়া বলেন, “কোন নিরপরাধ ব্যক্তি যেন হয়রানির শিকার না হয় এজন্য প্রশাসনের নিকট জোর দাবি জানাচ্ছি।”

সিনিয়র সাংবাদিক মোহাম্মদ কাজী নুর আলম বলেন, “১৬/১৭ নং ওয়ার্ডে একেরপর এক খুন হচ্ছে। এর পেছনের রহস্য উদঘাটন করে দীর্ঘ মেয়াদি সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।”

কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ ফিরোজ হোসেন বলেন, “জুনু মিয়া হত্যা মামলায় কোনো নিরপরাধ ব্যক্তিকে হয়রানি করা হবে না। আমাদের একাধিক গোয়েন্দা টিম হত্যার রহস্য উদঘাটনে মাঠে কাজ করছেন।”

উল্লেখ্য যে রোববার (১২ মে) ভোররাতে নগরীর ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের সংরাইশ গোমতী পাড় এলাকায় সন্তানকে না পেয়ে অসহায় অটোরিকশা চালক জুনু মিয়াকে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা করেন অজ্ঞাত খুনিরা।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com