1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
মুরাদনগরে চাঁদাবাজির মামলায় জনপ্রিয় ইউপি সদস্য কারাগারে - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৫০ অপরাহ্ন

মুরাদনগরে চাঁদাবাজির মামলায় জনপ্রিয় ইউপি সদস্য কারাগারে

সাখাওয়াত হোসেন (তুহিন)ঃ
  • Update Time : রবিবার, ২৪ মার্চ, ২০২৪
  • ৩০১৫ Time View

কুমিল্লার মুরাদনগরে একজন জনপ্রিয় জনপ্রতিনিধি আশরাফুল ইসলাম মেম্বারকে চাঁদাবাজি মামলায় গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার রাতে আশরাফুল ইসলামর নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ খবর ছড়িয়ে পরলে শনিবার সকাল থেকে আশরাফ মেম্বারের শুভাকাঙ্ক্ষী শত শত নারী পুরুষ থানায় হাজির হয়ে অনেককে কাঁদতে দেখা গেছে। আশরাফুল ইসলাম মেম্বার কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার নবীপুর পশ্চিম ইউনিয়নের রহিমপুর ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য। সে ওই ওয়ার্ডের তিন বারের মেম্বার। চাঁদাবাজ, মাদক সেবী ও ব্যবসায়ী হেলাল উদ্দিনের করা অভিযোগের ভিত্তিতে জনপ্রিয় আশরাফুল ইসলাম মেম্বারকে শনিবার বিকালে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। অভিযোগকারী হেলাল উদ্দিন রহিমপুর গ্রামের আবুল হাসেম মিয়ার ছেলে। একজন অপরাধীর অভিযোগে অধিকতর তদন্ত না করে আশরাফুল ইসলাম মেম্বারকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠানোর কারনে পুরো উপজেলা জুরে বইছে জল্পনা-কল্পনার ঝড়।

অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, ৪ মাস আগে হেলাল উদ্দিনের চাচার ৫টি সিএনজি থেকে আশরাফুল ইষলাম মেম্বার ১৫০০ টাকা চাঁদা দাবি করেছে। চাঁদা না দেয়ায় তার চাচা আর মুরাদনগর সিএনজি স্টেন্ডে আর গাড়ি নিয়ে আসতে পারেনি। অভিযোগের আরেক জায়গায় উল্ল্যেখ করেছে তিন মাস আগে হেলাল উদ্দিনের ভাই জালাল উদ্দিনের দোকান (স্বর্ণালী শিল্পালয়) গিয়ে আশরাফ মেম্বার ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে পরে হেলালের উপস্থিতে জালাল উদ্দিন ২ লাখ টাকা দিয়ে দেয়।

আশরাফুল ইসলাম মেম্বারের শশুর জসিম মোক্তার সাংবাদিকদের বলেন, আমার মেয়ের জামাইকে যখন পুলিশ গ্রেফতর করতে যায় তখন তাদের কাছে কোন ওয়ারেন্টের কাগজ ছিলনা। এস আই হারুন আমার মেয়ের জামাইর কাছে ২ লাখ টাকা চেয়েছিলো, টাকা দিতে পারেনি বলে তাঁকে থানায় ধরে এনে, হেলালকে ব্যবহার করে মিথ্যা মামলা দিয়ে জেলে পাঠানো হয়েছে। এস আই হারুনের ২ লাখ টাকা চাওয়ার কথা আমাদের কাছে রেকর্ড আছে।

দুলাল মিয়ার স্ত্রী নাজমা আক্তার বলেন, আশরাফ মেম্বারের মতো এমন ভালো মানুষ হয়না। তাঁকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। আশরাফ মেম্বার গরিব দুখি মানুষকে অনেক সাহায্য সহযোগিতা করে। আরেক ৭০ বছর বয়সি বৃদ্ধা নারী বলেন, আশরাফ মেম্বার নিজের জমি বিক্রি করে সাধারন মানুষের পাশে থেকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়। সে চাঁদাবাজি করেছে এ কথা আমরা বিস্বাস করিনা।
মুরাদনগর থানার ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধর বলেন, হেলালের করা অভিযোগের ভিত্তিতে আশরাফুল ইসলাম মেম্বারকে ্গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। বিজ্ঞ আদালত তাকে জেল হাজতে পাঠিয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com