1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
কুমেক হাসপাতালে বেড়েছে দালালদের দৌরাত্ম - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ১১:০৬ পূর্বাহ্ন
Title :
“কুমিল্লার হোমনায় ব্যবসায়ী হত্যা : আদালতের ঐতিহাসিক রায়ে ৭ জনের মৃত্যুদ- ও ৭ জনের যাবজ্জীবন” চৌদ্দগ্রামে বিদেশ প্রত্যাগত অভিবাসীদের পুনঃএকত্রীকরণে সেমিনার চৌদ্দগ্রামে দুর্নীতি বিরোধী বিতর্ক ও রচনা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ঈদের আগে জাল টাকার ছড়াছড়ি : ক্রেতা-বিক্রেতারা আতঙ্কে চৌদ্দগ্রামে বজ্রপাতে মাটিকাটার শ্রমিক নিহত হারানো পরিবারের সন্ধানে মোহাম্মদ ইয়াসিন: এক দশক পরেও মা’কে খুঁজছেন চৌদ্দগ্রামে ৬০ কেজি গাঁজা সহ কাভার্ডভ্যান জব্দ দেবীদ্বারে কিশোরী ধর্ষণ মামলার আসামী গ্রেপ্তার দেবীদ্বার উপজেলা প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত “আনারসের জোয়ারে উত্তাল কুমিল্লা সদর দক্ষিণ : ইঞ্জিনিয়ার রিপনের বিজয়ের প্রত্যয়ে মুখরিত জনতা”

কুমেক হাসপাতালে বেড়েছে দালালদের দৌরাত্ম

রুহুল আমিন চৌধুরী সুমন :
  • Update Time : বুধবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ৩১৯৭ Time View

এমপি বাহারের হস্তক্ষেপ কামনা ভুক্তভোগীদের

বৃহত্তর কুমিল্লা ও বৃহত্তর নোয়াখালী অঞ্চলের ছয় জেলার সর্ববৃহৎ স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠান হলো কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। দক্ষিণ বাংলার অন্যতম সেরা এই স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠানটি এখন দালালদের হাতে জিম্মি। দালাল ছাড়া এখানে কোনো চিকিৎসা মেলে না। দালালদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে গেলে উল্টো নানা দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

কুমেক হাসপাতালে অবস্থানরত দালালরা বেশ চৌকশ। এখানে শতাধিক সংঘবদ্ধ দালাল চত্র রয়েছে। এই দালালরা একেক জন একেক বিভাগ দেখে। দালালদের বেশিরভাগই রোগীদেরকে কমমূল্যে ও বাকিতে ওষুধ দেয়ার কথা বলে নিয়ে যায় বাইরের ওষুধ দোকানে। এরপর অতিরিক্ত অর্থ আদায় করেন তারা। এছাড়া প্যাথলজির কাজে দালালদের সঙ্গে কমিশনে কাজ করেন কুমেকের সামনে থাকা প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোর মালিক-কর্মচারীরা। রোগী ও রোগীর স্বজনরা এদের প্রধান টার্গেট।

জরুরি বিভাগ, বহিঃবিভাগসহ সবস্থানেই প্রকাশ্যে এসব দালাল চক্রের অবাধ বিচরণ রয়েছে। এদের বিরুদ্ধে রোগী বা তাদের স্বজনরা কোনো অভিযোগ তুললেই তাদের উপর শুরু হয় নানান হয়রানি। কিন্তু দালালদের টাকা দিলে টিকেট এবং ডাক্তারের সিরিয়াল কোনটা পেতেই সমস্যা হয় না।

সম্প্রতি কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, বহিঃবিভাগে ডাক্তার দেখাতে টিকেটের জন্য লাইনে অপেক্ষা করছেন রোগীরা। ১০ টাকা দিয়ে টিকেট পেতে প্রতি পদে পদে বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে তাদের। আর সেবা পেতে চিকিৎসকদের চেম্বারের সামনে অপক্ষো করছেন কয়েক’শ রোগী। এসব রোগীদের সেবা পেতে এদিক-ওদিক ছুটতে হচ্ছে।

কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ থেকে আসা এক রোগী কোহিনুর বেগম জানান, এখানে সেবা নিতে এসে উল্টো কষ্টই পেতে হয় রোগীদের। প্রতিটি ডাক্তারের চেম্বারের সামনে দালালরা ওত পেতে থাকে। তাদের টাকা দিলে এক ঘণ্টার কাজ ৫ মিনিটে হয়ে যায়। আর টাকা না দিলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ভোগান্তি পোহাতে হয়।

মুরাদনগর উপজেলা থেকে আসা রোগী আবদুল কাদের মোল্লা বলেন, আমার স্ত্রীকে গাইনী ডাক্তার দেখাতে এখানে এসেছি। কিন্তু গাইনী ডাক্তার একজন চিকিৎসকের মতো আচরণ করেন না রোগীদের সঙ্গে। রোগীদের সঙ্গে তার আচরণ খুবই বাজে। এরপর এখানে আল্ট্রাসনোগ্রাম করেও ভুল রিপোর্ট পাই। এখানে সেবার বদলে রোগীদের হয়রানি করা হচ্ছে।

কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার জগন্নাথপুরের ইদ্রিছ মেহেদী মিয়াজী বলেন, কুমিল্লা মেডিকেলে রোগীদের ভোগান্তি আর দুর্ভোগ বেড়েছে। হাসপাতালের কর্মচারী ও দালালদের টাকা না দিলে সহজে সেবা মিলে না। টাকা ছাড়া সেবা নিতে হলে পদে পদে ভোগান্তি আর দুর্ভোগ পোহাতে হয়। একটি সরকারি হাসপাতাল এভাবে চলতে পারে না।

বরুড়া পৌর এলাকার বাসিন্দা দিহান আলম ভূঁইয়া বলেন, পুরো হাসপাতালে রোগীরা দালালদের কাছে জিম্মি। এক শ্রেণির দালাল রোগীদের নিয়ে যায় নিজেদের প্যাথলজি সেন্টারে। এরপর হাতিয়ে নেয় অতিরিক্ত টাকা। আবার কখনো কখনো ডাক্তার ও নার্সরা কমিশনের বিনিময়ে তাদের নির্ধারিত প্যাথলজি সেন্টারে রোগীদের পাঠিয়ে দেয়।

নবিনগর থেকে বাবার চিকিৎসা করতে আসা খোদেজা বেগম বলেন, নবীনগর থেকে (কুমেকে) এখানে পাঠিয়েছেন ডাক্তার ভর্তি দেয়ার পর সিটিস্কিন পরিক্ষা লিখে দেয়ার পর ৭ তলায় ডাক্তারের সাথে থাকা একজন আমার হাত থেকে কাগজ নিয়ে কুচাইতলী সিসি স্কেন এন্ড প্যাথলজি সেন্টারে নিয়ে যায়। পরিক্ষা করার পর আমার কাছ থেকে সাড়ে ৭ হাজার টাকা দাবি করে আমার সাথে থাকা ৭ হাজার টাকা দিয়ে কোনো রকমে মুক্তি পাই। এরপর না খেয়ে বাবার চিকিৎসা কাজে আমাকে সময় দিতে হচ্ছে।

পাঁচশ শয্যা এই বিশিষ্ট এই হাসপাতালটি অনেকটাই খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে। কুমেক হাসপাতালে দালালদের দৌরাত্ম্য ক্রমেই বেড়ে চলার কারণে হাসপাতাল পর্যবেক্ষনে আসা কুমিল্লা সদর আসনের এমপি আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার বলেন, শুধুমাত্র দালালের কারণে সরকারি চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে সাধারণ রোগীদের প্রাইভেট হাসপাতাল- ক্লিনিকগুলোতে যেতে হচ্ছে। বারবার এই অভিযোগ আসার পরও এর কোনো সমাধান হচ্ছে না। অনেক মানুষ সেবা না পেয়ে আমাকে ফোন করে। পরে আমি বললে কাজ হয়। কিন্তু যারা আমাকে ফোন করতে পারে না তাদের কি অবস্থা হয়?

অপরদিকে, দালালদের দৌরাত্মের কথা স্বীকার করলেও কোনো কার্যকর ব্যবস্থা নিতে পারছেন না হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক সূত্র জানান, হাসপাতালের ভিতরে দালাল সিন্ডিকেটটি খুবই শক্তিশালী এদের কিছু বললে রাস্তাঘাটে আমাদের উপর হামলার ভয় দেখায়। হাসপাতাল সূত্র জানান, বহিঃবিভাগে প্রতিদিন এক হাজারের বেশি রোগী সেবা নিতে আসেন। শুধু কুমিল্লা নয়, পাশের আরো ৫ জেলার রোগীরাও এখানে আসেন সেবা নিতে। আর মূল সমস্যাটা হলো আমাদের প্রয়োজনের তুলনায় ডাক্তার অনেক কম। যার কারণে রোগীদের সেবা পেতে কিছুটা দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তবে আমরা সঠিক সেবা নিশ্চিত করতে কাজ করছি।

সূত্রমতে হাসপাতালে দালালের দৌরাত্ম্য বেড়েছে এটা সত্য। আমরা পুরো হাসপাতালকে দালাল মুক্ত করতে কাজ করছি। শিগগিরই প্রশাসনের সহায়তায় এসব দালালদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করার জন্য এমপি মহোদয়ের সহযোগিতা চাইবো।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে দায়িত্বশীল সূত্র জানান, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রয়োজনীয় সব পরীক্ষা-নিরীক্ষার কথা থাকলেও বঞ্চিত হচ্ছেন রোগীরা। অধিকাংশ রোগীকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাতে বাধ্য করা হয় হাসপাতাল ফটকের সামনের প্রাইভেট ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে। হাসপাতালের প্রতিটি চিকিৎসকের চেম্বার এবং ওয়ার্ডের সামনেই দাঁড়িয়ে থাকেন প্রাইভেট ক্লিনিকের নিযুক্ত দালাল। চিকিৎসকরা রোগীদেরকে কোনো প্রকার পরীক্ষা দিলেই তারা প্রেসক্রিপশন নিয়ে চলে যায় নিজস্ব ক্লিনিকে। আর সেখানে ইচ্ছেমতো আদায় করা হয় অতিরিক্ত অর্থ। এ ছাড়া হাসপাতালে নিযুক্ত টেকনিশিয়ানরাই নানা জটিলতা এবং বিড়ম্বনার কথা বলে বাইরের ক্লিনিক থেকে দ্রুত পরীক্ষার তাগিদ ও পরামর্শ দেন। এজন্য বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে ‘টোকেন মানি’ নেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।

কুমেক হাসপাতালে চাঁদপুর, ব্রা‏হ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা, নোয়খালী, লক্ষ্মীপুর ও ফেনীসহ ৬ জেলার হাজারো রোগী প্রতিদিন সেবা নিতে আসেন এ হাসপাতালে। ৫০০ শয্যার এই হাসপাতালে নিয়মিত ভর্তি থাকেন এক হাজারের বেশি রোগী।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com