1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
ছোটবেলায় পুলিশ নিয়ে ভাবনা ও কিছু কথা যা ভুলতে পারবোনা - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৫:৫৪ অপরাহ্ন
Title :
তিতাসে জাগ্রত একতা সংঘের সভাপতি শফিকুল ইসলামকে সংবর্ধনা দেবীদ্বারে আগ্নেয়াস্ত্রসহ ডাকাত দলের ১ সদস্য গ্রেফতার চান্দিনায় শ্রমিক অবরোধ : পারিশ্রমিকের দাবিতে মহাসড়ক স্তব্ধ কুমিল্লায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ৫২ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারি গ্রেফতার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে শ্রমিক আন্দোলনে যানজট চৌদ্দগ্রামে গাঁজা-ইয়াবা উদ্ধার, কথিত সাংবাদিকসহ আটক ১৩ চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় কাভার্ডভ্যান চালক নিহত ঈদে পরিবার ছেড়ে রাস্তায় : হাইওয়ে পুলিশের অক্লান্ত সেবায় সুরক্ষিত যাত্রা “কলেজের করিডোরে হৃদয়ের হাসি : বৃষ্টি ও সাহিত্যের মিলন” পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই চক্রের মূল হোতা গ্রেফতার

ছোটবেলায় পুলিশ নিয়ে ভাবনা ও কিছু কথা যা ভুলতে পারবোনা

এড. মোঃ সলীমুল্লাহ খান :
  • Update Time : সোমবার, ১০ এপ্রিল, ২০২৩
  • ৩৩১৭ Time View

পুলিশকে দেখে আসছি অনেক আগে থেকে, সরকারী কলোনীতে জন্ম প্রথম পুলিশ দেখেছি প্রতিবেশী হিসেবেই, হয়তো সে কারণে কিনা জানিনা পুলিশকে আমার কখনো ভয় লাগতোনা বরং একটু একা বেড়ানোর সুযোগ বা বয়সের যোগ্যতা যেটাই বলিনা কেন ফুটবল খেলা দেখতে গিয়ে পুলিশকে ”টোলা” বলতে দেখেছি তখন পুলিশকে এত অসহায় অবস্থা পরতে এর আগে কখনো দেখিনি, আবার যখন কোন দু গ্রুপের মারামারির মাঝখানে পরে যেতাম তখন পুলিশকে মনে হতো বন্ধুটাইপ খারাপনা।

কোন এক সময় কুমিল্লায় নায়ক নায়িকাদের প্রীতি ফুটবল যতবারই আয়োজন হতে দেখেছি ততবারই ফলাফল জনতা পুলিশ সংঘর্ষ, তবে তখন ১২৯০ নম্বরের একটি মাত্র পুলিশ টহল গাড়ী, তখন কেউ কেউ ভয় দেখানোর জন্য বলতো আইলোরে ১২৯০ তবে এরশাদের পুরো আমলটাতে পুলিশই যেনো জনগনের প্রধান শত্রু হিসাবে আবির্ভূত হলো, তারপরও পুলিশকে সহনীয় শত্রুই মনে হয়েছে, দাঙ্গা পুলিশ নামে রিজার্ভ পুলিশ বড় দুটি ট্রাকে করে আসতো তখন দৌড়ে পালাতে হতো ভালো কিংবা মন্দ সকলকেই তারা বাছ বিচার ছাড়াই ঠ‍্যাংগাতো। থানার পুলিশের মতোনা তারা আসতো যেন শুধু মারার জন্যই, এইরকম একবার নিউ মার্কেটের সামনে আক্রান্ত হলাম পরে দেখি যতজনই দৌড়ে পালাতে পেরেছি ভেবেছি যাক বেচে গেছি। কিন্তু পরোক্ষণেই আবিস্কার প্রত্যেকেরই পায়ের গিরার নীচে লাঠির বারি খেতে হয়েছে, শওকত লিয়াকত এর সামনে মোর্শেদুল আলম নামের একজন সহকর্মীর দেখলাম পায়ের গোড়ালী ফেটে রক্ত বেড়িয়ে গেছে, আমার রক্ত বের না হলেও গোড়ালী ফোলে গেছে ব‍্যথায় টনটন করছে। এরশাদ বিরোধী আন্দোলন আস্তে আস্তে তুঙ্গে পুলিশকে শ্লোগানের মধ্যেই বুঝানোর যেনো প্রচেষ্টা,

পুলিশ তুমি যতোই মারো,
বেতন তোমার ৪১২ চারশ’ বারো”

জানিনা তখন কি আসলেই পুলিশের বেতন ৪১২ ছিলো কিনা।নিশ্চয়ই ছিলো, হয়তো পুলিশের বেতন সে কারনেই বাড়ানো হয়েছিলো কিনা কে জানে।

ছোটরা কলোনীতে পুলিশের দারোগা থাকতেন নামটা মনে পরছনা ”মনু আপার আব্বা” মনু ও ঝুনু আপা। লেখাটা এডিট করতে গিয়ে আজকে নামটা মনে পড়েছে আব্দুল হাই। আমি শিক্ষকের সন্তান ছিলাম ঠিক তাই বলেনা সমাজের ধারনা বহু আগে থেকেই সমাজে প্রচলিত ছিল পুলিশ বিভিন্ন অফিসের কেরানী মানেই ঘুষখোর তাই তাদের পেট বড় ছিলো। মনু আপার আব্বা অনে বড় শরীর পেটও বড় ছিল কিন্তু তিনি ঘুষ খেতেন কিনা এটা বলা মুশকিল। তখন আমি অনেক ছোট আশ্চর্য হওয়ার বিষয় আমার বয়স তখন পাঁচ পেড়িয়ে মাত্র ছয় বছর বয়স। অনেক ছোট তবে অন্যদের তুলোনায় অনেক ছোট্ট কালের বিশেষ কিছু আমার মনে থেকে যায় বা আছে এবং আমার স্মরনে থাকে বলে কাছের অন্য অনেকের মতামত। আলহামদুলিল্লাহ্।

যেমন মন্নানের মুদি দোকান, সাথে কাপড় ইস্ত্রীর দোকান, নাম কি ছিলো জানিনা মোটারামের দোকান বলতো, তবে লোকটা মুসলিম ছিলো, একদিন কেউ বাসা থেকে বাহির হয়না, আমি দোকানে যাবার জন্য কলোনীর কোনাতে যাইতেই দেখি মনু আপার আব্বার ডিউটি তিনি বললেন কার্ফুয়ের মধ্যে স্যারে ছেলে কই যাস, বললাম দোকানে যাবো আর আসবো, বললেন দেরী করিসনা, যা, গেলাম রং দেয়া বুটও কিনলাম খেতে খেতে আসছি, পরে জানলাম ঐ দিনটি ছিলো ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট বা ঘটনা পরবর্তী কোন একটা দিন।

এরপর শহীদ জিয়ার আমলে কতো কিছু পুলিশের মাধ্যমে দেখেছি, যেমন সান্ধ্য আইন, সন্ধ্যার মধ্যে সব ঘরে থাকতে হবে বাহিরে আসা যাবেনা, এরপর হঠাৎ দেখলাম আইন সাইরেন বাজানোর সাথে সাথে রাত ৮টার সময় কারেন্ট থাকলেও বাতি বন্ধ করার ব্যাপার, পরে জানলাম এগুলো ছিলো উনার একধরনের যুদ্ধের কৌশল তিনিই ভালো জানতেন আমাদের শত্রু কারা। বিমান থেকে কোনটা শহর কোনটা গ্রাম বুঝতে না দেয়ার কৌশুল তবে আজো জানিনা এটা কাদের সাথে যুদ্ধ ভেবে করা হয়েছিলো।

শমশের দারোগা আমাদের পরিচিত স্বপন ভাইয়ের আব্বা তিনি একটু উচ্চ পদে ছিলেন। রূহুল আমিন ট্রাফিক পাশাপাশি হাত কাটা পুলিশ থাকতেন তবে তার নামটা মনে নেই। তবলিগ বলে ডাকতো। তিনি যখন তবললীগে যেতেন সংসার চলতো পুলিশের রেশনে যা পাওয়া যেত তা দিয়ে। তবে পরিবারের পর্দার কড়াকড়ির কারণে বিশেষ কিছু জানা ছিলোনা। উনার বছর বছর আল্লাহর নেয়ামতে বাচ্চা হতো তবে চারটাই কণ‍্যা সন্তান। উনার বাচ্চাদেরকেও তিনি ছোট বয়স থেকে ওড়না ঠিক তা না বর্তমানে যে হিজাব পরে এগুলো পড়াতেন।

যতটুকু মনে পড়ে উনার সবগুলো মেয়ে খুবই সুন্দরী ছিলেন। তিনি একবার তাবলীগে সময় লাগাতে চলে গেছেন তিন চিল্লা মানে ১২০ দিনের জন‍্যে। আর উনার বউ আবার সন্তান সম্ভবা বাচ্চা হবে তখন হয়তো তিনি রাজশাহী অঞ্চলে আছেন। পাশের বাসায় থাকতেন আমার খুব কাছের মানুষ কিবরিয়া ভাইয়ের ভাই ট্রাফিক পুলিশ রুহুল আমিন। হাতকাটা তবলিগের স্ত্রীর বাচ্চা হবে হাসপাতালে নিতে হবে। Ambulance আনা হলো কিন্তু মহিলা একটু বেশী অসুস্থ। রূহুল আমিন ভাই মহিলাকে পাজা কোলে করে নামিয়ে হাসপাতালে নিলেন, এ ঘটনার পর নতুন ইস‍্যু হাতকাটা তাবলীগ কামডা করলো কিতা। সবাই মিলে তাবলীগের চৌদ্দগোষ্ঠী উদ্ধার।

মহিলাটির পঞ্চমবারের মতো মেয়েই হইলো, মেয়ে গুলো একটা থেকে যেন একটা সুন্দর বেশী, হাত কাটা পুলিশ বোধ হয় পুত্র সন্তান পাবার আশায় ১২০ দিন সময় লাগিয়ে এসেছে। তিনি ফেরত আসলেন তখন ছোটরা সরকারী কলোনী জমজমাট। বিরাট সোসাইটি। মানুষ তাকে নানান কথা শোনাতেন সুযোগ পাইলে কে ছাড়ে। হাতকাটার মন যেনো আরো খারাপ হয়ে গেলো। তার বউকে পরপুরুষ কোলে নিয়ে যেতে হয়েছে আর সে তবলিগ করতে গেছে। এসব নিয়ে মুখরোচক আলোচনা।

শুক্রবার জুমার সালাত মসজিদ তখন জামপেট ফুলফিল বাহিরেও কাতার। ইমাম আব্দুল মালেক হুজুর জুমার খুৎবার আগে বাংলা বয়ান অনেকে বলেন বাংলা খুৎবা সেই বাংলা খুৎবাও অবশ্য বার চাঁন্দের খুৎবা থেকে বাংলা তরজমাটাই পাঠ করতেন কেননা পরে জেনেছি উনার জ্ঞানের বহর দেড়হাতের বেশী ছিলোনা যাক ইমাম সাহেবের টপিক আলাদা। বার চাঁন্দের খুৎবায় অটোমেটিক যা লেখা আছে সেই খুৎবা দিতে গিয়ে বললেন-

“যার একটি মেয়ে বা কণ্যা সন্তান তার জন্য একটি জান্নাত দেয়ার ওয়াদা আল্লাহ পাক করেছেন। ঠিক তখনই সব মুসুল্লি মনের অজান্তেই হাত কাটার দিকেই যেন সবাই বার বার তাকাচ্ছেন, হাতকাটার মনের অবস্থা অনুমেয় মনে মনে পারলে হুজুরকে বলে যে, নিজেরতো প্রথমেই দুই পোলা ”হাসান আর হোসাইন, আর আমার বেলা জান্নাত” তাই কিনা জানিনা হাতকাটা পুলিশ তার পঞ্চম মেয়ের নাম রাখলেন ”জান্নাত”, পরে জানতে পারলাম ব‍্যপারটা আমাদের নিকট থেকে শোনে আমার বাবা হাতকাটাকে আমাদের বাসায় ডেকে এনে কি কি জানি বুঝিয়েেছেন। উল্লেখ্য যে আমার বাবা তখন মসজিদের সেক্রেটারি পাশাপাশি তিনি ছিলেন অজাতশত্রু সবার শ্রদ্ধেয় ব‍্যক্তি মানুষ পীর সাহেবের মতো ভক্তি করতো। তিনি এলাকার বিচার আচারে অবশ‍্য যেতেন না। যতকিছু ভালো তার সাথে প্রথম আলো টাইপ মূল কথা যে কাজ করলে সোয়াব হইতে পারে সেটা করতেন বাকি সব এড়িয়ে চলতেন। আসলে আমার বাবা হাত কাটাকে সান্ত্বনা দিয়েছিলেন আর উনার ভুলটা ধরিয়ে সুন্দর করে বুঝিয়ে দিলেন। হয়তো হাত কাটার হাত খালি আব্বার দৃষ্টিতে কর্জে হাসানা। কেননা সোয়াব আছে। যাক সেসব কথা।

এরপর আসলেন মোসলেম দারোগা, মোটা বলে নাম পরলো ”পেটলা দারোগা” কাঠাল কিনলে দুটো, তরমুজ কিনলে দুটো, মানুষ খেয়াল করতো আসলে লোক সংখ্যা কমনা ইনিরও একটি ছেলের পর পাঁচটা মেয়ে বউ আবারো পোয়াতি, মানুষের ধারনা দুটি আনতেন ”নিজের জন্য একটা আর সবার জন্য একটা, তবে আমি উনার ছেলের নিকট থেকে জেনেছি মানুষের ধারনা ভুল” এরপর আসলো অসীম দারোগা, মুখে পোলাপানের খুব প্রশংসা আর পেছনে গেলে পোলাপানকে সন্দেহ করা, বড় হয়ে যখন জালাম পুলিশের প্রধান ও প্রথম কাজ নাকি সন্দেহ করা, এটা জানার পর উনার প্রতি আমার মনের রাগটা আর বিশেষ ছিলোনা।

একদিন শুক্রুবারে সবাই টিভি দেখছেন, তিন তলা বাসার ছাদে কে যেন কুকুরের বাচ্চা নিয়া তুলছে মোসলেম দারোগার রাগ ছিলো বেশী, তিন তলা থেকে কুকুরের বাচ্চাটিকে আছাড় মারতে গিয়ে ইলেক্ট্রিকের তারে লেগে শর্ট সার্কিট করে কুকুরটি যদিও বেচে যায় তবে প্রায় ৩১ বাসার টিভি শর্ট সার্কিটে নষ্ট হয়ে গেল। সবাই টিভি নিয়ে দৌড়াদৌড়ি করা লাগছে, পেটলা দারোগা শোনার পর মনটা তার খারাপ লেগেছে দূর ছাই কি করতে কি করে ফেললাম, অপরাধবোধে ঐ দিন নীচে নামেননি পোলাপানকি জানে এতোসব আবার খেলতে গিয়ে কুকুর ছানা আছরের আযানের আগেই আবার সেই স্থানে কুকুরের ডাক তখন মোসলেম দারোগার নিকট তেমন আর খারাপ লাগছেনা, মনে মনে নিজেকে শাসালেন গেউগেউ ডাকুক কুকুর ডাকুইন্না জিনিস আমি বাধা দেবার কে।

 

লেখক : এড. মোঃ সলীমুল্লাহ খান, জজকোর্ট, কুমিল্লা।

আইন বিষয়ক উপদেষ্টা : দৈনিক কুমিল্লার ডাক।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com