1. billalhossain@cumillardak.com : দৈনিক কুমিল্লার ডাক : দৈনিক কুমিল্লার ডাক
  2. : admin :
  3. Editor@gmail.com : Comillar Dak : Comillar Dak
  4. Noman@cumillardak.com : Noman :
ডাক্তার পরিচয়ে সিজারের চেষ্টা করেন আয়া! মায়ের জরায়ু কর্তন, নবজাতকের মৃত্যু - দৈনিক কুমিল্লার ডাক
মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০২:০৭ পূর্বাহ্ন
Title :
দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের পরবর্তী ৪ মাসে দেবীদ্বারে প্রায় শতাধিক হামলা-মারধরের ঘটনা ঘটেছে ময়নামতি ক্রসিংয়ে ৮ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক কুমিল্লায় নিহত আবু মিয়ার জন্য এলাকাবাসীর মানববন্ধন : দ্রুত বিচারের দাবি চৌদ্দগ্রামে পূর্ব বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী ও প্রবাসী সহ আহত ৩ “কুমিল্লা নগরীতে চাঁদাবাজির ঘটনায় ক্ষুব্ধ সিটি মেয়র, অভিযুক্ত গ্রেপ্তার” ঘূর্ণিঝড় রিমাল : বঙ্গোপসাগরের তাণ্ডবে বিপদসংকেত জারি দেবীদ্বারে উনঝুটি আদর্শ পাঠাগারের উদ্যোগে মা-বাবার প্রতি দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পর্কে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত “কুমিল্লার ক্রাইম ক্যাপিটল : অপরাধের আড়ালে নগরীর ৬, ১৬ ও ১৭ নং ওয়ার্ড নীরব সাক্ষী” কুমিল্লার তিন ওয়ার্ডে কেন এতো লাশ? কুমিল্লায় ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৫ জন, পলাতক ড্রাইভারকে গ্রেফতার করেছে হাইওয়ে পুলিশ

ডাক্তার পরিচয়ে সিজারের চেষ্টা করেন আয়া! মায়ের জরায়ু কর্তন, নবজাতকের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৮ আগস্ট, ২০২৩
  • ৩৬৩৩ Time View

তিতাস মেডিকেল সেন্টার

কুমিল্লা নগরীর বাগিচাগাঁওস্থ তিতাস মেডিকেল সেন্টার নামের একটি প্রাইভেট হাসপাতালে গাইনী ডাক্তার পরিচয়ে আয়া কর্তৃক প্রসূতির ডেলিভারি চেষ্টায় নবজাতককে হত্যা এবং প্রসূতি মায়ের জরায়ু কেটে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আশংকাজনক অবস্থায় প্রসূতী সাবিনা ইয়াসমিন বিথি (২৫) বর্তমানে টমসনব্রীজ এলাকার মর্ডান হাসপাতালের আইসিইউ তে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন।

এবিষয়ে ভুক্তভোগী’র স্বজন ও স্বামী দেবিদ্বার উপজেলার জাফরগঞ্জ ইউনিয়নের পিরোজপুর গ্রামের ব্যবসায়ী মোশাররফ হোসেন জানান, “৭আগষ্ট সোমবার সকাল ১০টায় আমার স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিনের প্রসব ব্যাথা দেখা দিলে তাৎক্ষণিক তাকে বাগিচাগাঁও এলাকার তিতাস মেডিকেল সেন্টারে নিয়ে আসি।

সকাল আনুমানিক ১১টায় হাসপাতালের দায়িত্বরত তাসলিমা রিজভি লাইলি নিজেকে গাইনী ডাক্তার পরিচয় দিয়ে (স্ত্রী) রোগীকে ভর্তি করেন। পরে রোগীকে হাসপাতালের ওটিতে নিয়ে যান তিনি সহ তার সহযোগীরা। কিছুক্ষণ পর আমাকে জানানো হয় মা ও বেবি ভালো আছে তবে জরুরী সিজার করতে হবে ১ব্যাগ রক্তের ব্যবস্থা করতে। রক্ত ম্যানেজ করে দেয়ার পর হাসপাতালের গাইনি ডাক্তার পরিচয় দেয়া তাসলিমা রেজভী লাইলি ওটিতে থাকা অন্যন্যরা জানান, মৃত (মেয়ে) বাচ্চা হয়েছে। আমার স্ত্রীর অবস্থা ভালো নয়, পেটে দুটো বড় টিউমার রয়েছে জরুরী আরেকটি অপারেশন করতে হবে।

আরো রক্তের প্রয়োজন এবং অপারেশনের জন্য ২৭ হাজার টাকা নেন। পরবর্তী তিন ঘন্টার মধ্যে একে একে ১৬ ব্যাগ রক্ত জোগাড় করান আমাকে দিয়ে। তারা জানায়, আমার স্ত্রীর অবস্থা ভালো নয় রক্তপাত বন্ধ হচ্ছে না। স্ত্রীর পেট থেকে দুটো টিউমার অপসারন করা হয়েছে। এসময় আমি জানতে চাই সিজারের আগে আলট্রাসহ বিভিন্ন পরিক্ষা-নিরিক্ষা করানো হয়েছে কেন টিউমার ধরা পরলো না, এসবের সদুত্তর না দিয়ে তারা আমাকে বাইরে অপেক্ষা করতে বলে।

বিকেল আনুমানিক তিনটায় আমি জোর পূর্বক হাসপাতালের ওটিতে ঢুকতে চাইলে তারা বাঁধা দেয়। পরে জানতে পারি, গাইনি ডাক্তার পরিচয় দেয়া কথিত ডাক্তার কোন প্রকার সনদ নেই। এমন কি সে সনদপত্র কোন নার্স বা কনসালটেন্ট ও নয়। মুলত হাসপাতালের সাথে অবৈধ ভাবে চুক্তিতে নরমাল ডেলিভারি করিয়ে থাকেন লাইলি। তিনি মূলত একজন ধাত্রী বা দায়ী। তিতাস হাসপাতালের কথিত ডাক্তার লাইলিসহ হাসপাতালের ডিউটি ডাক্তার ও নার্সগণ সিজারের আগে নরমাল ডেলিভারির চেষ্টা করে স্যালাইন পুশ ও বিভিন্ন ঔষধের মাধ্যমে ডেলিভারির চেষ্টা করেন।

তাদের অপচিকিৎসার ফলে আমার স্ত্রীর জরায়ু ফেটে যায় এবং প্রচুর রক্তক্ষরন হয়। পরে কোন ভাবেই রক্ত বন্ধ করতে না পেরে জীবন বাঁচাতে নিঃসন্তান স্ত্রী’র জরায়ু কেটে ফেলেন। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায় রোগীকে জরুরী আইসিইউতে স্থানান্তর করতে হবে। তাদের হাসপাতালে আইসিইউ নেই। পরে একই দিন সন্ধ্যায় তাদের সহায়তায় টমসনব্রীজ এলাকার মর্ডান হাসপাতালের আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। আমার স্ত্রী বর্তমানে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন। ডাক্তারদের ভাষ্যমতে, তার অবস্থা আশংকাজনক। আল্লাহর দয়ায় জীবন রক্ষা পেলেও আমার স্ত্রী আর কখনোই মা হতে পারবেন না। তিতাস হাসপাতালে আনার আগেও আমার স্ত্রী ও তার গর্ভের সন্তান সুস্থ স্বাভাবিক ছিলো। এর আগে মেডিকেলের সব রিপোর্ট দেখলেই বুঝতে পারবেন।

এছাড়া আমাদের সংসারে আর কোন সন্তান নেই। চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা, ভুয়া ডাক্তার দ্বারা এমন প্রতারণা, নিঃসন্তান যুবতী’কে সারাজীবনের জন্য বন্ধা করে দেয়া এবং নবজাতককে অপচিকিৎসার মাধ্যমে হত্যায় জড়িত তিতাস হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছি। ইতিমধ্যেই জেলা সিভিল সার্জন অফিসে মৌখিক ভাবে জানানো হয়েছে। লিখিত ভাবে অভিযোগের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। আমাদের মত আর কেউ যেন এমন পরিস্থিতির শিকার না হয়, এর সুষ্ঠ বিচার দাবি করছি।

এসব বিষয়ে জানতে তিতাস মেডিকেল সেন্টার হাসপাতালে গেলে ডিরেক্টর খোরশেদ আলম ও হাসপাতাল ম্যানেজার জানায়, ডাক্তার পরিচয় দেয়া তাছলিমা রেজভী লাইলি হাসপাতালের নার্স বা ডাক্তার কেউ নয়। প্রসূতি ও বিভিন্ন রোগী নিয়ে আসেন মাঝে মাঝে হাসপাতালে। লাইলি ডাক্তার বা নার্স না হয়েও ওটি এবং ডাক্তার চেম্বার ব্যবহার করেন কি ভাবে এমন প্রশ্নের সঠিক কোন জবাব না দিয়ে বিষয়টি এড়িয়ে যান তারা। তারা জানান, লাইলি হাসপাতালে আসেননি এমনকি ফোনও বন্ধ। তার বাসায় তালা দেয়া, লোক পাঠিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি।

তাকে পাওয়া গেলে, কেন এমন হলো সে বিষয়ে বিস্তারিত বলা যাবে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রাইভেট হাসপাতাল পরিচালনায় নিয়ম অনুযায়ী জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় কর্তৃক লাইসেন্স থাকার কথা থাকলেও হাসপাতালটির লাইসেন্সের মেয়াদ দুবছর আগেই শেষ হয়েছে।

এছাড়া আবাসিক বাসাবাড়ির আদলে হাসপাতাল ভবনের বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে কোন রোগীর দেখা মেলেনি। উপস্থিত ছিলেন না ডিউটি ডাক্তার, প্রশিক্ষিত বা সনদপ্রাপ্ত কোন নার্স। এছাড়া হাসপাতালটির অপারেশন থিয়েটারের পরিবেশও মানসম্মত নয়। জটিল ও কঠিন অপারেশন ও চিকিৎসাসেবা দেয়া হলেও হাসপাতালটিতে নেই সিসিইউ বা আইসিইউ সেবা দেয়ার মত নূন্যতম ব্যবস্থাও।

পরবর্তীতে প্রসূতির সিজার ও জরায়ু অপারেশন সম্পন্নকারী গাইনি সার্জন জেনিফার শারমিন এর কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রতিবেদকে বলেন, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অনেক অনুরোধে অন কলে সেখানে যাই। ওটিতে গিয়ে রোগীর কন্ডিশন খারাপ দেখে কুমিল্লা মেডিকেলে রেফার্ড করতে বলি।

সেখানে নেয়ার মতো পরিস্থিতিও ছিলোনা বলে পরে হাসপাতালের ওটিতে লাইলি হাতে পায়ে ধরে অনুরোধ করায় রোগীর জীবন বাঁচাতে মানবিক কারনেই অপারেশন করি। আমি সেখানে যাওয়ার আগেই লাইলি বিভিন্ন উপায়ে ডেলিভারিতে চেষ্টা করে রোগীর অবস্থা খারাপ করে ফেলে। আমি গিয়ে বেবির পালস হার্টবিট পাইনি, মৃত বচ্চা ডেলিভারী করা হয়। প্রসূতীর জরায়ু ফাটা দেখতে পাই। একজন অনভিজ্ঞ ও অদক্ষ লোক কি করে ওটিতে কাজ করে। মানবিক কারনেই রোগীর জীবন রক্ষায় কোন প্রকার ফি ছাড়াই অপারেশন করে আসি। পরে রোগীর স্বজনদেরও বিস্তারিত জানিয়ে তাৎক্ষণিক আইসিইউতে শিফট করতে বলি। আপনারা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও ফ্রড পরিচয়ে চিকিৎসা দেয়া লাইলির বিরুদ্ধে আইনাগত ব্যবস্থা নিতে পারেন।

এবিষয়ে কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন নাসিমা আক্তারের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি। ডেপুটি সিভিল সার্জন নিসর্গ মেরাজ চৌধুরী বলেন, ঘটনাটি শুনেছি এবিষয়ে খোঁজ নেয়া হচ্ছে। ভুক্তভোগীর লিখিত অভিযোগ এখনো পাইনি, অভিযোগ পেলে বিস্তারিত জানতে পারবো এবং তদন্ত সাপেক্ষে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © comillardak.com